kalerkantho


ব্যাংককের জ্যামে স্বস্তি দিচ্ছে মোটরসাইকেল সেবা

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৩ আগস্ট, ২০১৭ ০০:০০



ব্যাংককের জ্যামে স্বস্তি দিচ্ছে মোটরসাইকেল সেবা

ব্যাংকক শহরে দ্রুত গন্তব্যে যেতে স্বস্তির কারণ হয়ে উঠেছে মোটরসাইকেল ট্যাক্সি

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংকক জ্যামের শহর হিসেবেই দীর্ঘদিন থেকে পরিচিত। সেই শহরেই এখন স্বস্তির কারণ হয়ে উঠেছে মোটরসাইকেল ট্যাক্সি।

নির্দিষ্ট সময়ে অফিসে যাওয়া, দ্রুত বাসায় ফেরা কিংবা সঠিক সময়ে মিটিংয়ে উপস্থিত হওয়া সবই যেন সম্ভব হচ্ছে মোটরসাইকেল সেবার কারণে। ব্যাংককের রাস্তায় যখন দীর্ঘ যানজটে পরিবহনগুলো আটকে থাকে, তখন এ মোটরসাইকেল দিয়েই অসংখ্য যাত্রী তাদের গন্তব্যে পৌঁছায় ফলে ব্যাংককে এখন জনপ্রিয় গণপরিবহন মোটরসাইকেল সেবা।

আর এ সেবায় পুরুষ চালকের পাশাপাশি রয়েছে নারী চালকও। আবার নারী-পুরুষ সব ধরনের যাত্রীই গ্রহণ করছে আধুনিক শহরের এ ট্যাক্সি সেবা। ব্যাংককের মোটরসাইকেল চালক ৪০ বছর বয়সী নারী কামোকন সাঙ্গনাজিয়ান বলেন, প্রতিদিন ৯ ঘণ্টা মোটরসাইকেল ট্যাক্সি চালাই। আমি আমার ১৫০ সিসি মোটরসাইকেল দিয়ে যানজটের মধ্যেও যাত্রীদের যত দ্রুত সম্ভব তাদের গন্তব্যে পৌঁছে দিই। তিনি বলেন, অনেক জায়গায় চাকরি খুঁজে পাইনি, তাই আমার এক বন্ধুর মাধ্যমেই এ পেশায় আসি। প্রথম অবস্থায় পুরুষদের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে কিছুটা অস্বস্তি লাগলেও এখন ভালোই লাগছে। এ কাজে স্বাধীনতা আছে, যা চাকরিতে নেই।

তিনি বলেন, প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চালাই। বাকি সময় বাসায় আমার সন্তানদের দিই। এ আয় দিয়ে আমি আমার সংসারের খরচের পাশাপাশি সন্তানদের পড়াশোনা করাচ্ছি।

জানা যায়, ১৯৯৭ সালে এশিয়ায় অর্থনৈতিক সংকটে থাইল্যান্ডে হাজার হাজার নারী-পুরুষ তাদের চাকরি হারায়। এদের অনেকেই বেকারত্ব ঘোচাতে আস্তে আস্তে শহরে মোটরসাইকেলে রাইড সেবা দিতে শুরু করে, যা এখন একটি আনুষ্ঠানিক পেশায় পরিণত হয়েছে। এশিয়ান রিভিউ।


মন্তব্য