kalerkantho


দর্শনার্থীদের চাহিদা পূরণে বিক্রেতারা প্রস্তুত

ছুটির দিনের জন্য বাড়তি আয়োজন বাণিজ্য মেলায়

ফারজানা লাবনী   

৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ছুটির দিনের জন্য বাড়তি আয়োজন বাণিজ্য মেলায়

মেলায় চুড়ি, ঘড়িসহ সুন্দর করে সাজিয়ে রাখা নানা গয়না দর্শনার্থীদের নজর কাড়ছে। ছবি : মঞ্জুরুল করিম

বছরের শুরু থেকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু হলেও এখনো সেভাবে জমে ওঠেনি। বিক্রেতারা মনে করছেন, কর্মব্যস্ততার কারণেই মানুষ এত দিন আসতে পারেনি, ফলে ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার ক্রেতার সমাগম ঘটবে, বেচাকেনাও ভালো হবে। তাই আজকের মেলায় চাহিদা অনুযায়ী পণ্য সরবরাহে যাতে বিঘ্ন না হয় সে জন্য স্টলগুলোতে রয়েছে বাড়তি আয়োজন। আজ ক্রেতার হাতে চাহিদামতো পণ্য দিতে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে স্টলে স্টলে যে যার সেরা পণ্য সাজানো শুরু করেছে। অনেক স্টলে শুধু আজ ও আগামী কালের (শনিবার) জন্য অতিরিক্ত বিক্রয়কর্মীও নিয়োগ করা হয়েছে। হাজী বিরিয়ানি, মিঠাই, প্রাণ, ম্যাগি, ইগলুসহ অনেক খাবারের স্টলে একই সঙ্গে অনেকে খেলে বিশেষ ছাড় থাকছে। অনেক স্টলে ক্রেতা টানতে শুধু সাপ্তাহিক ছুটির দিনের জন্য বিশেষ অফার থাকছে। ক্রেতাদের নিরাপত্তায় এ দুই দিনকে ঘিরে বাণিজ্য মেলায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

প্রাণ আরএফএল গ্রুপের উপমহাব্যবস্থাপক জিয়াউল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রতিবছরের মতো এবারে সাপ্তাহিক ছুটির দিনকে ঘিরে দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়বে বলে আশা করছি। এ জন্য আজকে (বৃহস্পতিবার) প্রাণের স্টলে নতুন অনেক পণ্য পাঠানো হয়েছে। ক্রেতাদের সুন্দর এবং আন্তরিক সেবা দিতে বিক্রয়কর্মীর সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে।’ রাজধানীর আগারগাঁও বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের পাশেই ১ জানুয়ারি বড় আয়োজনে মাসব্যাপী বাণিজ্য মেলা শুরু হয়েছে। প্রতিবছরের মতো এবারেও দেশি-বিদেশি রকমারি পণ্য রয়েছে স্টলগুলোতে।

সরেজমিনে বাণিজ্য মেলা ঘুরে দেখা যায়, গাড়ি, আসবাবপত্র, ঘর-গৃহস্থালির পণ্য, ইলেকট্রনিকস, হস্ত ও কুটির শিল্পের সামগ্রী, খেলনা, হাল ফ্যাশনের পোশাক, শাড়ি, জুতা, প্রসাধনী, জুয়েলারি থেকে শুরু করে মজাদার খাবার সবই আছে। যানজটের এই রাজধানীতে একই স্থানে সব ধরনের পণ্য পাওয়া যাচ্ছে।

বাণিজ্য মেলায় আকতার ফার্নিচার, লিগাসিসহ দেশের নামি দামি প্রতিষ্ঠানের স্টল রয়েছে। বাসা-বাড়ি ও অফিসে ব্যবহার উপযোগী কাঠের আসবাবের পাশাপাশি অ্যালুমিনিয়াম, স্টিলের ফার্নিচারও বিক্রি হচ্ছে। মেলা উপলক্ষে বিশেষ ছাড় রয়েছে এসব স্টলে। সব বয়সীদের জন্য হাল ফ্যাশনের পোশাক বিক্রি হচ্ছে অনেক স্টলে। ছোটদের পোশাক ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। ছেলেদের ফতুয়া, টি-শার্ট, শার্ট-প্যান্ট, কোটি, পাঞ্জাবি বিক্রি হচ্ছে। বাহারি ডিজাইনের দেশি-বিদেশি শাড়ি রয়েছে অনেক স্টলে। জুতা স্যান্ডেলেও রয়েছে বৈচিত্র্য। শুধু থাইল্যান্ডের পণ্য নিয়ে একই জায়গায় রয়েছে অনেক স্টল। এখানে থাইল্যান্ডের তৈরি ক্লিপ, ঘড়ি, ব্যাগ, স্যান্ডেলের চাহিদা বেশি। তবে থাইল্যান্ডের তৈরি কৃত্রিম ফুল এবং ঘর সাজানো শোপিসও নজর কাড়ছে। শোপিস তিন শ থেকে শুরু করে পাঁচ হাজার টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

ভারত, পাকিস্তানের পণ্য নিয়েও বাণিজ্য মেলায় রয়েছে একাধিক স্টল। এসব স্টলে কানের দুল, গলার মালা, হাতের চুড়ি, জুতা, স্যান্ডেল, ওড়না, বিভিন্ন ধরনের পোশাক, শীতের শাল, ঘরের পাপোশ থেকে রকমারি পণ্য রয়েছে। দাম দুই শ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত।

বাণিজ্য মেলায় সারি সারি সাজানো রয়েছে রান্নাঘরের নিত্য ব্যবহার্য পণ্য। এসবের মধ্যে রয়েছে বৈদ্যুতিক চুলা, রাইস কুকার, প্রেসার কুকার থেকে সাধারণ মানের থালা-বাসন, গ্লাসসহ বিভিন্ন পণ্য। ফাইবারের পণ্যও কিনছে অনেকে।

সবজি কাটা, সালাদ কাটার যন্ত্র বিক্রি হচ্ছে পাঁচ শ থেকে সাত শ টাকায়। দেশি-বিদেশি প্লাস্টিকের পণ্য বিক্রিতে মেলায় রয়েছে একাধিক স্টল। প্লাস্টিকের তৈরি চামচ থেকে সোফা সবই আছে। এসব বাহারি ডিজাইনের পণ্য কিনছে অনেকে। এখানে নারী ক্রেতার সংখ্যা বেশি। প্লাস্টিকের পণ্য ২০ টাকা থেকে দুই হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে ঘুরতে ঘুরতে কিছু খাওয়ার প্রয়োজন হলে বাণিজ্য মেলায় সারি সারি সাজানো স্টলে গিয়ে সুন্দর পরিবেশে খাবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।


মন্তব্য