kalerkantho


মোবাইল ফোন উৎপাদনে একগুচ্ছ নীতি সহায়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মোবাইল ফোন উৎপাদনে একগুচ্ছ নীতি সহায়তা

দেশে মোবাইল হ্যান্ডসেট উৎপাদন করলে একগুচ্ছ নীতি সহায়তা দেবে সরকার। স্মার্ট ও ফিচার ফোন উৎপাদনে ব্যবহৃত বিভিন্ন কাঁচামাল আমদানিতে মাত্র ১ শতাংশ শুল্ক, রপ্তানিতে ১০ শতাংশ নগদ সহায়তা এবং হাইটেক পার্কে কারখানা করলে ২০২৪ সাল পর্যন্ত কর অবকাশ সুবিধা পাওয়া যাবে। তাই দেশে মোবাইল ফোন কারখানা স্থাপনের আহ্বান জানিয়েছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

গতকাল বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে তিন দিনের ‘টেকশহর ডটকম স্মার্টফোন অ্যান্ড ট্যাব এক্সপো ২০১৮’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহেমদ পলক। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন স্যামসাং মোবাইল বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার স্যাংওয়ান ইউন, ট্রানশান বাংলাদেশ লিমিটেডের সিইও রেজওয়ানুল হক, শাওমি বাংলাদেশের সিইও দেওয়ান কানন, আমরা কম্পানিজের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সৈয়দ ফারহাদ আহমেদ, হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ডেপুটি ডিরেক্টর (হুয়াওয়ে ডিভাইস বিজনেস ডিপার্টমেন্ট) জিয়া উদ্দীন এবং এক্সপো মেকারের কৌশলগত পরিকল্পনাকারী মুহম্মদ খান।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশি কম্পানিগুলোর পাশাপাশি বহুজাতিক ব্র্যান্ডগুলোও এখানে কারখানা স্থাপন করে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ পণ্য উৎপাদন করে বাংলাদেশ ও সার্কভুক্ত দেশগুলোতে রপ্তানি করতে পারে। বর্তমানে সরকার আইসিটি পণ্য ও সেবা রপ্তানিতে ১০ শতাংশ নগদ সহায়তা দিচ্ছে, যা আগামী বাজেটে আরো বাড়বে বলে আভাস দেন।

তিনি বলেন, দেশে এখন ওয়ালটন, সিম্ফনি, উইসহ বেশ কয়েকটি দেশি ব্র্যান্ডের কারখানা স্থাপন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আশা করছি বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল ব্র্যান্ডও দেশে মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজন করতে আগ্রহী হবে।

মন্ত্রী বলেন, যারা ফ্রি ওয়াই-ফাই দেবেন তাঁদের প্রচলিত মূল্যের চেয়ে যাতে কম দামে ব্যান্ডউইডথ দেওয়া যায় সে ব্যবস্থা করা হবে। দীর্ঘদিন ধরে আটকে থাকা ভ্যালু অ্যাডেড গাইডলাইন অনুমোদন শিগগিরই হবে।

জুনাইদ আহেমদ পলক বলেন, সাড়ে তিন কোটি মোবাইল ফোন আমদানি হয়, এর ২৭ শতাংশ স্মার্টফোন, পাঁচ বছর আগে তা ২ শতাংশ ছিল। এক্সপো মেকারের আয়োজনে নবম এই মেলায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান মূল্য ছাড় ও উপহার দিচ্ছে। মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে।


মন্তব্য