kalerkantho


নির্মাণ ও ঘর সাজানোর পণ্য নিয়ে আইসিসিবিতে প্রদর্শনী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



নির্মাণ ও ঘর সাজানোর পণ্য নিয়ে আইসিসিবিতে প্রদর্শনী

মেলার একটি স্টলে পণ্য দেখছেন দর্শনার্থীরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

নির্মাণ অবকাঠামো, কাঠ এবং পরিবেশবান্ধব স্থাপত্যকৌশল সংশ্লিষ্ট শিল্পের নতুন উদ্ভাবন, প্রযুক্তি ও পণ্যের প্রদর্শনী চলছে ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি)। এখানে যাঁরা উদ্যোক্তা তাঁদের জন্য যেমন নানা প্রযুক্তি রয়েছে তেমনি যাঁরা রং থেকে শুরু করে ফার্নিচার সম্পর্কে ভালো ধারণা নিয়ে ঘর সাজাতে চান তাঁদের জন্যও রয়েছে পণ্য। দেশি-বিদেশি নানা প্রতিষ্ঠান তাদের উদ্ভাবন ও পণ্যগুলো প্রদর্শন করছে এ মেলায়।

বাংলাদেশের আসক ট্রেড অ্যান্ড এক্সিবিশনস প্রাইভেট লিমিটেড এবং ভারতের ফিউচারেক্স ট্রেড ফেয়ার অ্যান্ড ইভেন্টস লিমিটেডের যৌথ আয়োজনে প্রদর্শনীটি শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ বিল্ডকন ২০১৮, গ্রিনআর্ক ২০১৮ এবং বাংলাদেশ ইড ইন্টারন্যাশনাল এক্সপো ২০১৮ নামে প্রদর্শনী চলছে। আইসিসিবির চারটি হলজুড়ে ১০টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২০০টি স্টল রয়েছে। যেখানে অধিকাংশ স্টলই বাংলাদেশ, ভারত ও চীনের উদ্যোক্তাদের। গতকাল বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া প্রদর্শনীটি চলবে তিন দিন। আগামী শনিবার এটি শেষ হবে।

প্রদর্শনীতে বিভিন্ন ধরনের কাঠকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে নানা ডিজাইনে। এগুলো ক্রেতারা দেখে তাদের ফার্নিচার তৈরির জন্য পছন্দ করছে। ঘরের ডেকোরেশনকে চমকপ্রদ করার জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য প্রদর্শন করছে। এর মধ্যে একটি লিও কিং। যারা নির্মাণ ও ডেকোরেশনের নানা চাহিদা পূরণ করে থাকে। প্রতিষ্ঠানের এক্সিকিউটিভ (সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং) বশির ইবনে হাসান বলেন, ‘গতানুগতিকের বাইরে কেউ যদি কাঠের ব্যবহারে ঘরের ডেকোরেশন তৈরি করতে চান তবে আমারা সেটা করছি। অফিসের ডেকোরেশনেও আমরা ভালো কাজ করছি। শুধু কাঠের ফার্নিচার কেন, কাঠ দিয়ে পুরো বাড়িও তৈরি হতে পারে, যা কি না অত্যন্ত নিরাপদ বলে জানালেন কেউ কেউ।’

অনেকেই চিন্তিত থাকেন কাঠের ওপরে কী ধরনের রং ব্যবহার করা যায়। সেই সলিউশন নিয়ে এসেছে বার্জারসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। এরা শুধু কাঠেই নয়, পুরো ঘরবাড়িতেই রঙের ব্যবহার কিভাবে করতে হবে তা জানাতে মেলায় এসেছে। নির্মাণাধীন বাড়ির ভেতরে-বাইরে ব্যবহারের জন্য ওয়াটারপ্রুফ রঙের ব্যবহার সম্পর্কে জানাচ্ছে প্রতিষ্ঠানগুলো।

ই-কোল নামের একটি প্রতিষ্ঠান বাসাবাড়িতে কত আধুনিক ভেন্টিলেশন ব্যবহার করা যায় তা দেখাচ্ছে। তারা মূলত ইন্ডাস্ট্রিয়াল ভেন্টিলেশন, রেসিডেনশিয়াল ভেন্টিলেশন এবং এয়ার হ্যান্ডলিং নামের তিনটি ভাগের ভেন্টিলেশন দেখাচ্ছে। এর পাশাপাশি কিছু প্রতিষ্ঠান বাসাবাড়ি প্রস্তুত এবং রাস্তাঘাট বানানোর নানা মেশিনারি নিয়েও হাজির হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসক ট্রেড অ্যান্ড এক্সিবিশন প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক টিপু সুলতান বলেন, ‘এটি একটি আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী। এখানে বিশ্বের নানা প্রান্তের বিশেষজ্ঞদের অংশগ্রহণে বিশ্বমানের এ আয়োজন উদ্যোক্তা এবং ক্রেতার মধ্যে একটি যোগাযোগ বৃদ্ধি করবে। নানা নতুন বিষয় অনেকের সামনে চলে আসবে।’



মন্তব্য