kalerkantho


বরিশাল বোর্ডের উত্তরপত্র মূল্যায়নে ভুল

৬৯ পরীক্ষককে অব্যাহতি

বরিশাল অফিস   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



উত্তরপত্র মূল্যায়নে ভুল করায় ৬৯ জন পরীক্ষককে অব্যাহতি দিয়েছে বরিশাল শিক্ষা বোর্ড। ২০১৮ ও ২০১৯ সালের পরীক্ষার খাতা তাঁরা দেখতে পারবেন না। গত রবিবার বিকেলে বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে এসংক্রান্ত নোটিশ প্রকাশ করা হয়েছে।

নোটিশ সূত্রে জানা যায়, শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক মনোনীত প্রধান পরীক্ষাকদের প্রতিবেদন অনুযায়ী ‘ঘ’ শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত ১৪ জনকে ২০১৮ সালের এক বছরের জন্য এবং একই শ্রেণির অন্তর্ভুক্ত পুনর্নিরীক্ষণের প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৮ ও ২০১৯ সালের জন্য ৪২ জন পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষককে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ‘ঙ’ শ্রেণিতে প্রধান পরীক্ষকের প্রতিবেদন অনুযায়ী আটজন ও পুনর্নিরীক্ষণের প্রতিবেদন অনুযায়ী পাঁচ পরীক্ষককে ২০১৮ ও ২০১৯ সালের জন্য অব্যাহিত দেওয়া হয়েছে। তাঁদের মধ্যে অধ্যক্ষ দুজন, উপাধ্যক্ষ দুজন, সহযোগী অধ্যক্ষ একজন, সহকারী অধ্যাপক ১৫ জন ও প্রভাষক রয়েছে ৪৯ জন।

তাঁরা হলেন মুলাদী উপজেলার পূর্ব হোসনাবাদ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আব্দুর রহমান, বরিশাল সদর উপজেলার শহীদ জিয়াউর রহমান কলেজের অধ্যক্ষ মশিউর রহমান, ভাণ্ডারিয়া উপজেলার মজিদা বেগম কলেজের উপাধ্যক্ষ আবু জাফর, বাবুগঞ্জ উপজেলার আগরপুর কলেজের উপাধ্যক্ষ মাসুম বিল্লাহ্।

এ ছাড়া অন্যারা হলেন সহযোগী অধ্যাপক মো. দেলোয়ার হোসেন, সহকারী অধ্যপক অমল চন্দ্র নন্দী, সোহরাব হোসাইন, মো. নাসির উদ্দিন, হাবিবুর রহমান, বিল্পব হালদার, কাজী আব্দুল আউয়াল, সিদ্দিকা আকতার, গিয়াস উদ্দিন, নারায়ণ চন্দ্র সাহা, নাসির উদ্দিন, এ বি এম খলিলুর রহমান, আবদুস সালাম, কান্তি ভূষণ রায়, মো. নাজির হোসেন ও মোশারেফ হোসেন।

প্রভাষক ফতেমা নাজনীন, প্রভাষক বানী রানী শীল, সঞ্জিব অধিকারী, হেলেনা আক্তার, সীমা, গৌতম চন্দ্র সরকার, মাকসুদ বেগম, বিল্পব চন্দ্র শীল, জহিরুল ইসলাম, মো. গোলাম মোস্তফা, মো. আব্দুল কুদ্দুস, অমৃত লাল হালদার, ইব্রহীম খলিল, আঁখি, মো. আলী হোসেন, মো. রশিদ, মো. শাহাদাৎ হোসেন, রতন কুমার হালদার, কুমকুম ভট্টাচার্য্য, ফাতেমা নাজনীন, মো. সেলিম, এ টি এম কামরুজ্জামান, কাজী মো. হাসান, বীথি রেখা, আব্দুর রহমান মিয়া, রফিকুল ইসলাম, জাকির হোসেন, বিরাট চন্দ্র বৈরাগী, পঙ্কজ কান্তি রায়, মো. মনিরুজ্জামান, জসিম উদ্দিন, পলাশ কুমার হালদার, তাপস কুমার ঢালী, রিপন চক্রবর্তী, মো. সিদ্দিকুর রহমান, আরিফ হোসেন, সেলিম উদ্দিন, দিলরুবা ফেরদৌস, কামাল হোসেন, মো. নজরুল ইসলাম, আব্দুল মান্নান, আতিকুল হক, স্বপন কুমার সমাদ্দার, আবুল কালাম আজাদ, ফরিদ উদ্দিন খান, রতন কুমার সাহা ও কাওসার হোসেন।

বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. আনোয়ারুল আজিম বলেন, উত্তরপত্র মূল্যায়নের সময়ে ভুলত্রুটি হওয়া গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে অবহেলার শামিল। প্রধান পরীক্ষকদের ভুলের কারণে শিক্ষার্থীর জীবনে বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে।

এ ছাড়া তাঁদের ভুলের খেসারত দিতে হয় বোর্ড কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষার্থীদের। ফলে উত্তরপত্র মূল্যয়নে ভুলত্রুটি হওয়ার মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারণে পরীক্ষক ও প্রধান পরীক্ষকদের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে এক বছর ও দুই বছর পর্যন্ত উত্তরপত্র মূল্যায়নের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।



মন্তব্য