kalerkantho


গুগলের ডুডলে হুমায়ূন আহমেদ কাঁদলেন নুহাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



গুগলের ডুডলে হুমায়ূন আহমেদ কাঁদলেন নুহাশ

গায়ে নীল-সাদা পোশাক, চোখে চশমা। নিজের গড়া ভুবন নুহাশপল্লীতে টেবিল পেতে বসে আছেন হুমায়ূন।

হাতে বই, টেবিলে চায়ের কেটলি, কাপ। এগিয়ে আসছে তাঁরই তৈরি জনপ্রিয় চরিত্র হিমু। হিমুর গায়ে তার প্রিয় হলুদ পাঞ্জাবি। বোহেমিয়ান চরিত্র হিমুর পা খালি। জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদকে তাঁর জন্মদিনে গতকাল সোমবার এভাবেই শুভেচ্ছা জানাল গুগল, তাদের হোমপেজে বিশেষ লোগো বা ডুডল দিয়ে। বাংলা সাহিত্যের এই বরপুত্রকে এভাবে তারা বিশ্বজুড়েও বিশেষভাবে তুলে ধরল।

বিশেষ দিন, ঘটনা ও বিশিষ্টজনদের শ্রদ্ধা জানাতে গুগল হোমপেজে বিশেষ লোগো প্রদর্শন করে থাকে। এটি ডুডল হিসেবে পরিচিত। গতকাল বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে গুগল ডটকম বা গুগল ডটকম ডটবিডি ঠিকানায় ঢুকে এই ডুডল দেখা যাচ্ছিল।

ডুডলের ওপর ক্লিক করে হুমায়ূন আহমেদ সম্পর্কে সব খবর, তথ্য এক পাতায় গতকাল দেখা যাচ্ছিল। শেষে গুগল লিখেছে : হ্যাপি বার্থডে হুমায়ূন। এর আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস, প্রখ্যাত স্থপতি এফ আর খানের জন্মদিন ছাড়াও বিভিন্ন সময়ে ডুডল প্রকাশ করেছে গুগল।

গতকাল গুগলে গিয়ে হুমায়ূনপুত্র নুহাশ হুমায়ূন আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। পরে তিনি ফেসবুকে লেখেন, ‘অসাধারণ! আমার কান্না চলে আসছে। ’

হুমায়ূন আহমেদ জন্ম নিয়েছিলেন নেত্রকোনার কুতুবপুরে ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর। তাঁর বাবা ফয়জুর রহমান আহমেদ ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে শহীদ হন। হুমায়ূন আহমেদের মা আয়েশা ফয়েজ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের মেধাবী ছাত্র হুমায়ূন পড়াশোনা শেষ করে ওই বিভাগেই প্রভাষক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। তিনি একপর্যায়ে অধ্যাপনা ছেড়ে লেখালেখি, নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাণে মনোযোগী হন। তিনি একুশে পদক, বাংলা একাডেমি পুরস্কারসহ দেশে-বিদেশে বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন। তিনি কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই নিউ ইয়র্কে মারা যান। মরদেহ দেশে এনে দাফন করা হয় তাঁর আপন ভুবন নুহাশপল্লীতে।


মন্তব্য