kalerkantho


কালের কণ্ঠ মাথানত করে না

১০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



আজ ১০ জানুয়ারি নবম বর্ষে পদার্পণ করছে ‘কালের কণ্ঠ’। যে নিবেদিতপ্রাণ সংবাদকর্মীরা ক্লান্তিহীন দায়িত্ব পালন করে এই পত্রিকাটিকে প্রতিনিয়ত নির্মাণ করছেন, তাঁদের সবাইকে প্রাণঢালা অভিনন্দন। পত্রিকাটি মানবতার পক্ষে সব সময় কাজ করে। একটি চিত্র বিশেষভাবে মনে পড়ে, যা আমার মনে গভীরভাবে রেখাপাত করেছিল, ঘটনাটি এমন—পটুয়াখালীর রাঙাবালী উপজেলায় মাদারবুনিয়া গ্রাম। এই গ্রামে কোনো বিদ্যালয় নেই। কাছাকাছি বাহিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শীতের দিনে সাঁতার কেটে শিশুরা বিদ্যালয়ে যেত। বৃহত্তর পটুয়াখালীতে অবহেলিত মান্তা জনগোষ্ঠীর করুণ চিত্র এই পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। পরে সেখানে প্রশাসনের দৃষ্টি পড়ে। এ ছাড়া দুর্বৃত্ত কর্তৃক অত্যাচারিত, প্রতাপশালীর দ্বারা নিষ্পেষিত, চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত ইত্যাদি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের অনেক চিত্র পত্রিকাটিকে প্রতিনিয়ত গণমানুষের কাগজে পরিণত করছে। শিক্ষাঙ্গনের পবিত্রতা রক্ষার পত্রিকাটি সদা উচ্চকণ্ঠ। শিক্ষাঙ্গনের পরিবেশ, শিক্ষকদের অবহেলা ইত্যাদি শিক্ষাসংক্রান্ত অনেক খবর এখানে প্রকাশিত হয়েছে। সমাজের প্রান্তসীমায় পৌঁছে বাস্তব চিত্র তুলে আনতে কালের কণ্ঠ সদা তৎপর। তারা এখন অনলাইন র্যাংকিংয়ে ‘প্রথম’। এটাই পাঠক হিসেবে আমার বড় আনন্দের জায়গা। প্রত্যাশা করি, আগামী দিনে পত্রিকাটি আরো বড় ভূমিকা নিয়ে পাঠকের কাছে হাজির হবে। দেশের প্রতি, জনগণের প্রতি নীতিগত দায়িত্বের পরিচয় দিয়ে পত্রিকাটির কর্মীরা সমাজের প্রান্তসীমায় পৌঁছে দরিদ্র আর অসহায়, অত্যাচারিত, নিষ্পেষিত মানুষের চিত্র তুলে ধরবে। সব রকমের ভীতিমুক্ত হয়ে স্বাধীনভাবে তার মত প্রকাশ করবে। কোনো চাপের কাছে ‘কালের কণ্ঠ’ মাথানত করবে না, এটাই হবে কালের কণ্ঠ’র পরিচয়।

নিমাই কৃষ্ণ সেন, মেইন রোড, বাগেরহাট।


মন্তব্য