kalerkantho


কালের কণ্ঠ’র আরো বলিষ্ঠ ভূমিকা চাই

৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কালের কণ্ঠ’র আরো বলিষ্ঠ ভূমিকা চাই

আগামী ১০ জানুয়ারি নবম বছরে পা রাখবে কালের কণ্ঠ। আট বছর ধরে কর্তৃপক্ষ-সম্পাদক-প্রতিবেদক সবাই অনেক বিষয়েই ঝুঁকি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছেন, অভিমত প্রকাশের ব্যবস্থা করেছেন। অন্যায্যতার বিরুদ্ধে, দুর্নীতি-অনিয়মের বিরুদ্ধে কথা বলেছে কালের কণ্ঠ। অবহেলিত-নিষ্পেষিত মানুষের পক্ষে সোচ্চার হয়েছে; উন্নয়ন-শান্তি-স্থিতিশীলতার পক্ষে কথা বলেছে; কারো কাছে মাথা নত না করে সত্যের পক্ষে অবিচল থেকেছে। দেশীয় সংস্কৃতির চর্চা ও বিকাশে ভূমিকা রেখেছে। সরকারের নীতিনির্ধারকদের তথ্য সমৃদ্ধ করেছে। এ ধারা অব্যাহত থাকুক। ভূমিকা আরো বলিষ্ঠ হোক। কালের কণ্ঠ’র সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। টেলিফোন ও ই-মেইলে পাঠকরা এ অভিমত জানিয়েছেন

 

► ন্যায়নিষ্ঠা, সততা ও সঠিক তথ্যের সংবাদ পরিবেশনের জন্য কালের কণ্ঠ সারা দেশের পাঠকের মধ্যে নিজের স্থান করে নিয়েছে। এই পত্রিকা দেশের মুক্তিযুদ্ধ, সাধারণ মানুষের কথা তুলে ধরে। আমরা চাই তারা মাদকদ্রব্য, খাদ্যে ভেজাল ও দুর্নীতি—প্রধানত এই তিনটি বিষয় নিয়ে সব ক্ষেত্রে নিজেদের দৃঢ় অবস্থান তুলে ধরুক। তাদের এসব কাজের মাধ্যমে যেমন জনগণের জন্য কাজ করা হবে, তেমনি সরকারও এখান থেকে নিজের কাজের সহায়তা পাবে। এ ছাড়া সপ্তাহে এক দিন পত্রিকাটি পাঠকের মতামত তুলে ধরে পাঠকদের সম্মানিত করেছে।

হুমায়ুন কবির বাবু

দক্ষিণ বানিয়াগাতি, বেলকুচি, সিরাজগঞ্জ।

 

► দেশে-বিদেশেও এর কদর বেড়েছে। আগামী ১০ জানুয়ারি পত্রিকাটি নবম বর্ষে পদার্পণ করছে। অতি অল্প সময়ে পাঠকের কাছে পত্রিকাটির মূল্যায়ন অনেক বেড়েছে। সব ভয়ভীতির ঊর্ধ্বে অকুণ্ঠচিত্তে তারা সত্য প্রকাশ করে। প্রতি সপ্তাহে মতামতের বাইরে পাঠকদের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কের জন্য আরো কিছু নতুন বিভাগ খোলা যেতে পারে। এ ছাড়া প্রতি সপ্তাহের মতামতদাতা পাঠকের মধ্য থেকে একজনকে সেরা মতামতদানকারী হিসেবে পুরস্কৃত করা যেতে পারে।

মোহাম্মদ জামরুল ইসলাম

দক্ষিণগাঁও, সবুজবাগ, ঢাকা।

 

► কিছু মফস্বল শহরে কালের কণ্ঠ পত্রিকা পাওয়া যায় না। সে ক্ষেত্রে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রতিষ্ঠিত সরকারি-বেসরকারি গণপাঠাগারগুলোতে সাময়িকভাবে সম্ভাব্য সৌজন্য কপি সরবরাহ করলে এই পত্রিকা সম্পর্কে মানুষ স্বল্প সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ ধারণা পেয়ে যাবে। ফলে পাঠক সংখ্যাও আনুপাতিক হারে বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তা ছাড়া প্রতিদিন রাত ১২টার পরপরই কালের কণ্ঠ’র অনলাইন এডিশন প্রকাশের ব্যবস্থা করলে উপকৃত হই।

ভূঁইয়া কিসলু বেগমগঞ্জী

চৌমুহনী, হাজীপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী।

 

► অনৈতিকতা, অব্যবস্থাপনা, দুর্নীতি, ভেজাল, মাদক, সামাজিক বিশৃঙ্খলাসহ সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে একটি লড়াকু কণ্ঠস্বর কালের কণ্ঠ। অল্প সময়ের মধ্যে কালের কণ্ঠ সাফল্য লাভ করেছে। ক্ষুরধার লেখনী ও সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে পাঠক মহলের কাছে প্রিয় গণমাধ্যমে পরিণত হয়েছে। শুভর কাছে সবার পাশে ‘শুভসংঘ’ সংগঠন কালের কণ্ঠ নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তারা নানা সেবামূলক কাজ করছে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে সত্য প্রকাশের প্রতি নিষ্ঠাবান থেকে তারা সপ্তাহে এক দিন দীর্ঘ এক পাতাজুড়ে পাঠকের মতামত প্রকাশ করে যাচ্ছে। সেখানে পাঠকরা তাঁদের নিজেদের কথা বলার সুযোগ পান, যা এই প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী করেছে।

আবদুর রাজ্জাক নাছিম

চান্দাইকোনা, শেরপুর, বগুড়া।

 

► এই কাগজ দেশের জনগণের কাছে একটি মূল্যবান ও মর্যাদাপূর্ণ পত্রিকা। এর মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারি। কালের কণ্ঠ যেন ন্যায়ের পথে, সত্য উদ্ঘাটনের পেছনে অবিচল থাকে, এটাই প্রত্যাশা।

ফারজানা ফাইজা কানিস

সীমাবাড়ী এসআর বালিকা বিদ্যালয়, শেরপুর, বগুড়া।

 

► কালের কণ্ঠ’র নবম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে রইল রজনীগন্ধার শুভেচ্ছা। পত্রিকাটি রাজনীতি, সামাজিক, অর্থনীতি, খেলাধুলা, ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে কৃতিত্বের দাবিদার। অন্যান্য পত্রিকা থেকে এসব ব্যাপারে এর স্বকীয়তা, বৈশিষ্ট্য আলাদা।

জাহাঙ্গীর কবীর পলাশ

শ্রীধরপুর, বাড়ৈইখালী, মুন্সীগঞ্জ।

 

► কালের কণ্ঠ শুধু আমার একার নয়, পরিবারের সব সদস্যের প্রিয় পত্রিকা। তবে নতুন বছরে আবদার একটিই, নারীদের জন্য পৃথক ফিচার পাতা চাই। এ ছাড়া কালের কণ্ঠ’র ঈদ কিংবা বিয়ে সম্পর্কিত ম্যাগাজিন জেলা-উপজেলায় আসে না আর আমরাও পাই না। কালের কণ্ঠকে অষ্টম বর্ষপূর্তির উষ্ণ অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

 নৌশিন নাওয়াল সুনম

পশ্চিম টেংরী, ঈশ্বরদী,পাবনা।

 

► পাঠক হিসেবে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাব এই পত্রিকার কর্তৃপক্ষকে, পত্রিকাটিতে সপ্তাহে এক দিন একটি পাতা সাধারণ মানুষের মতামত প্রকাশের জন্য বরাদ্দ রাখায়। এতে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সাধারণ মানুষ তাদের মতামত জানাতে পারে। এই পত্রিকার উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি।

এম আনিসুর রহমান

শেখেরখিল, বাঁশখালী, চট্টগ্রাম।

 

► কালের কণ্ঠ’র মগজ ধোলাইয়ের পুরস্কার আবার চালু করুন। এতে পত্রিকাটির সার্কুলেশন অনেকাংশে বাড়বে বৈ কমবে না। কালের কণ্ঠ’র আয়োজনে তরুণ লেখকদের অংশগ্রহণে নিয়মিত কলাম লেখার বিষয়ে উৎসাহিত করা যেতে পারে, দু-একজনকে পুরস্কারও দেওয়া যেতে পারে। আরো অনুসন্ধানীমূলক সংবাদে পারদর্শী হতে হবে। প্রিয় পত্রিকার সর্বোচ্চ সাফল্য কামনা করি।

এস এম রওনক রহমান আনন্দ

বাবুপাড়া, ঈশ্বরদী, পাবনা।

 

► দীর্ঘদিন ধরে কালের কণ্ঠ’র নিয়মিত পাঠক আমি। সবচেয়ে একটি ভালো দিক হলো, মূল পত্রিকার সঙ্গে মগজ ধোলাই নামে ছোট একটি পত্রিকা ছিল। সেই মগজ ধোলাইয়ে বিভিন্ন ধাঁধা দেওয়া থাকত। জনপ্রতি সঠিক উত্তরদাতাদের মধ্য থেকে একজনকে ৫০০ টাকার প্রাইজ বন্ড দেওয়া হতো। কিন্তু সেটি আজ কয়েক বছর ধরে চালু নেই। সেই ধাঁধার জন্য আজও বড় কষ্ট লাগে। সেই মগজ ধোলাইয়ের ধাঁধাগুলো কেন বন্ধ করা হলো? আমি আবার ধাঁধাগুলো চালু করার জন্য সম্পাদককে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি। মোট কথা কালের কণ্ঠ বাংলাদেশের সেরা পত্রিকা। কালের কণ্ঠ অনেক জ্ঞানের ভাণ্ডার। কালের কণ্ঠে অনেক কিছু শিক্ষণীয় বিষয় থাকে। যদি কেউ নিয়মিতভাবে পত্রিকাটি পড়ে, তাহলে অনেক কিছুই শিখতে পারবে। তাই আগামী দিনে তাদের পথচলাটুকু আরো যাতে ভালো হয়, সেই শুভ কামনা রইল।

মাহফুজুর রহমান খান

চিনিতোলা, মেলান্দহ, জামালপুর।

 

► যুগোপযোগী বাস্তবধর্মী লেখনী প্রকাশ করে সবার আস্থা অর্জন করেছে। ভুল শুধরে আদর্শ সমাজ প্রতিষ্ঠায় কালের কণ্ঠকে কাজ করে যেতে হবে। দেশীয় সংস্কৃতির চর্চা ও বিকাশে আরো সোচ্চার হতে হবে। বাল্যবিবাহ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, শিশু নির্যাতন, পরিবেশদূষণ প্রভৃতি বন্ধ করতে কালের কণ্ঠকে দায়িত্বশীল উদ্যোগ নিতে হবে। অন্যায় প্রতিরোধে প্রতিবাদী লেখনী প্রকাশ করতে হবে, যাতে সবাই সচেতন হতে পারে। কুসংস্কারের বিরুদ্ধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। কোনো রাজনৈতিক পক্ষ না নিয়ে কালের কণ্ঠকে জনগণের প্রিয়ভাজন হতে হবে। শিশু-কিশোরদের বাংলা ভাষা চর্চার সুবিধার জন্য সাময়িকী প্রকাশ করতে হবে। মাদকের বিস্তার রোধে কালের কণ্ঠকে সোচ্চার থাকতে হবে। জনগণের অভাব-অভিযোগের কথা যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরাই হোক কালের কণ্ঠ’র মূল দায়িত্ব।

হাফেজ আতিকুর রহমান

কাছিকাটা, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট।

 

► বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ, দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা, সৃষ্টিশীল উপস্থাপনার এক অনন্য উদাহরণ কালের কণ্ঠ। গতানুগতিকতার বৃত্ত ভেঙে সংবাদপত্রের একটি নতুন ধারণা সূচনা করেছে পত্রিকাটি। এই পত্রিকার প্রতিটি সংবাদই জনগণের কথার প্রতিধ্বনি। পাশাপাশি অবসর, মগজ ধোলাই, এ-টু-জেড—এ বিভাগগুলো বিভিন্ন বয়সের পাঠকের মনের খোরাকও মেটায়। সপ্তাহে এক দিন বিশেষ বিষয়ের ওপর মতামত প্রকাশের মাধ্যমে পাঠকদের কথা বলার একটি স্বতন্ত্র জানালা খুলে দিয়েছে কাগজটি। পাশাপাশি প্রতি শুক্রবার সাবেক ক্রীড়াবিদদের সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তরুণরা তাঁদের সঙ্গে পরিচিত হয়, যা অনেক বেশি প্রেরণাদায়ক। তবে একজন পাঠক হিসেবে বলব, এখনো পত্রিকাটির কিছু জায়গায় আরো ভালো করার সুযোগ রয়েছে। ‘চাকরি আছে’ বিভাগটি আমাদের দেশের চাকরিপ্রার্থীদের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। এই বিভাগের পরিধি আরো সম্প্রসারিত করতে হবে। এ ছাড়া সাহিত্য পাতাটি ম্যাগাজিন আদলে হলে ভালো হয়। মঞ্চ, থিয়েটারের খবর আরো বেশি প্রচার করতে হবে। সব শেষে কালের কণ্ঠ’র সাফল্য কামনা করছি।

এম এ সাক্কুর আলম

জিনজিরা, ঢাকা।

 

► কালের কণ্ঠ’র প্রতিদিনের চেহারাই সারা দেশের চেহারা বলে আমার কাছে মনে হয়। কালের কণ্ঠ’র চোখ দিয়ে দেশের ও সারা বিশ্বের অগণিত পাঠক প্রতিদিন বাংলাদেশকে দেখে। তাই দেখার দৃষ্টি হতে হবে সব সময় নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ।

মেনহাজুল ইসলাম তারেক

মুন্সীপাড়া, পার্বতীপুর, দিনাজপুর।

 

► পত্রিকাটিতে মাদকের বিরুদ্ধে মাসে এক দিন পাঠকের কাছ থেকে মতামত নেওয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। এতে সমাজে মাদক নির্মূলের ব্যাপারে সচেতনতা বাড়বে। সব অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে এই পত্রিকার দৃপ্ত কণ্ঠস্বর আমাদের শক্তি জোগায়। স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া হয় এখানে। আমরা পত্রিকাটির উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

নাদিম খান

ভাইজোড়া, পিরোজপুর।

 

► আশা করি, বাংলাদেশের ভবিষ্যতের সম্ভাবনাময় বিষয়গুলো তুলে ধরবেন আর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তরুণদের মধ্যে ব্যাপকভাবে প্রচার করবেন। শুভ কামনা রইল।

মো. তৌফিকুল ইসলাম

বাঁশখালী, চট্টগ্রাম।

 

► বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে কালের কণ্ঠ জনগণের প্রিয় হয়ে উঠেছে। এ ধারা যেন অব্যাহত থাকে। জনগণের অভাব-অভিযোগ রাষ্ট্রের কর্তাদের কাছে উপযুক্ত লেখনীর মাধ্যমে উপস্থাপন করতে হবে। সামাজিক সমস্যা পর্যবেক্ষণ করে সঠিক সমাধানের জন্য মতামত তুলে ধরতে হবে। কালের কণ্ঠ যেন আরো সত্যনির্ভর তথ্য উপস্থাপন করতে পারে, এ কামনা করি। সামাজিক ব্যাধিগুলো দূর করার নিমিত্তে আরো সচেতন ভূমিকা পালন করতে হবে। বাংলা সংস্কৃতি চর্চা ও শিশু-কিশোরদের মানসিক বিকাশে আরো উদ্যোগ নিতে হবে। দলনিরপেক্ষ হয়ে কাজ করতে হবে। কালের কণ্ঠ’র প্রতিবাদী আচরণ বজায় থাকুক।

তাইফুল ইসলাম মুন্না

কাছিকাটা পাঠক সংঘ, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট।

 

► কাগজ ও ছাপার মান আরো ভালো হতে হবে। অনলাইন ভার্সনে যাচ্ছেতাই জিনিস প্রকাশ করা যাবে না। নতুন বছরে কালের কণ্ঠ শুভসংঘের উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক ও শিক্ষামূলক ইভেন্টের আয়োজন করতে হবে।

লিপি রহমান

বিমানবন্দর সড়ক, ঈশ্বরদী, পাবনা।

 

► পত্রিকাটির অনেক ভালো দিকের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো—মফস্বলের সংবাদকে প্রাধান্য দেওয়া হয়, খেলাধুলার পাতায় সব বয়সের এবং সব শ্রেণির পাঠকের জন্য লেখা থাকে। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক পাতা, খেলাধুলার পাতার কথা উল্লেখ না করলেই নয়। দৈনিক এসব পাতার সঙ্গে পাশাপাশি মগজ ধোলাই, অবসর, কথায় কথায় একেবারে অভিনব কয়েকটি পেজ। এ পাতাগুলোই কালের কণ্ঠ’র স্বতন্ত্র। ব্যবসা-বাণিজ্যের পাতাকেও যথেষ্ট গুরুত্ব দেওয়া হয়। পত্রিকাটি আরো পাঠকপ্রিয় হোক, আরো সৃষ্টিশীল হোক তাদের ভূমিকায়—এই প্রত্যাশা আমাদের।

মো. আবদুল হান্নান

মানপুর, লাখাই, হবিগঞ্জ।

 

► ভবিষ্যতেও যেন দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের ওপর তাজা খবরাখবর বয়ে এনে দিতে পারে। যুগ যুগ ধরে কালের কণ্ঠ পত্রিকার অস্তিত্ব বহাল থাকুক এবং দীর্ঘস্থায়ী হোক—এটাই মনেপ্রাণে চাই।

শায়লা শারমিন রিমা

কাজুলিয়া, গোপালগঞ্জ।

 

► দেশের অনেক খ্যাতনামা নির্ভীক সাংবাদিক ও লেখকের সঙ্গে আমার পরিচয় ঘটেছে তাঁদের লেখার মাধ্যমেই। দীর্ঘদিনের পত্রিকা পাঠের অভিজ্ঞতা থেকেই বলছি, বর্তমানে বাংলাদেশে প্রকাশিত ও সবার কাছে গ্রহণযোগ্য পত্রিকাগুলোর মধ্যে কালের কণ্ঠই অন্যতম। কালের কণ্ঠ শুধু সংবাদমাধ্যমই নয়, বিনোদনেরও একটি বড় মাধ্যম। দেশ-বিদেশের সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ছাড়াও খবরের বিশ্লেষণ, খ্যাতনামা সাংবাদিক ও বিশিষ্ট জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তিদের কলাম, অতি সাধারণ মানুষের লেখা, লেখাপড়া, খেলাধুলা, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব বিষয়ের প্রতিই গুরুত্ব দিয়ে থাকে এবং নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে থাকে; যা থেকে আমাদের তরুণ প্রজন্মের পাঠক দেশের শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ইতিহাস সম্পর্কে অনেক কিছুই জানার সুযোগ পাচ্ছে।

বিপ্লব বিশ্বাস

ফরিদপুর।

 

► বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশে কালের কণ্ঠ সব সময় অবিচল। কোনো কিছুই যাতে কালের কণ্ঠকে দমাতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে কর্তৃপক্ষকে।

এস এম সাইদুর রহমান উলু

এয়ারপোর্ট রোড, স্কুলপাড়া, ঈশ্বরদী, পাবনা।

 

► কালের কণ্ঠকে মূল্যায়ন করতে গেলে একটি মতামতের মাধ্যমে হয়তো সম্ভব নয়। নতুন বছরে কালের কণ্ঠ’র কাছে আমার প্রত্যাশা, সেবাই আপনাদের মূল লক্ষ্য হোক, আপনাদের উদ্দেশ্য ব্যবসা যেন না হয়।

মোহাম্মদ অংকন

ঢাকা।

 

► সত্য খবর প্রকাশ পায় বলেই ভোর থেকে অপেক্ষায় থাকি কখন আসবে প্রিয়, অতি আদরণীয় কালের কণ্ঠ। আশা করি, পত্রিকাটি শতবর্ষ অতিক্রম করুক। আমি মনে করি, কালের কণ্ঠ সততা, নিষ্ঠা ও সাহসের সঙ্গে আসল খবর দিয়ে যাচ্ছে প্রতিদিন। কালের কণ্ঠ আমার বাকি জীবনের নিত্যসঙ্গী হয়ে রইবে। ৯ বছরে পদার্পণ উপলক্ষে বিনোদন বা সিনেমার পাতার খবরের আরেকটু উৎকর্ষ চাই। কালের কণ্ঠ’র সাফল্য অটুট থাকুক।

লিয়াকত হোসেন খোকন

রূপনগর, ঢাকা।

 

► মাত্র আটটি বছরের ব্যবধানে কালের কণ্ঠ বিপুল পাঠকের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়। বাংলাদেশের সব মানুষের কানে পৌঁছে গেছে কালের কণ্ঠ’র নাম। পত্রিকাটি আগামী দিনে আরো বিপুল পাঠকের আস্থা অর্জন করবে—এই প্রত্যাশা করি।

সাকিব আল হাসান রুবেল

বামনের চর, রৌমারী, কুড়িগ্রাম।

 

► আংশিক নয়, পুরো সত্য—কালের কণ্ঠ এ স্লোগান সঙ্গী করে পথচলা শুরু করেছে। আরো বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপস্থাপন করতে হবে। রাজনৈতিক নিরপেক্ষতা বজায় রেখে কালের কণ্ঠকে আরো ভালোভাবে কাজ করতে হবে। কোনো দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত না হয়ে বা কোনো ভয়ভীতির বশীভূত না হয়ে জনবান্ধব গণমাধ্যম হয়ে কাজ করতে হবে। দুর্নীতি, অনিয়ম, অনাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকতে হবে। সামাজিক প্রতিবন্ধকতা দূর করার জন্য অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। শুভ কামনা রইল।

মো. মুন্না বিন আতিক

কাছিকাটা, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট।

 

► চিঠিপত্র ও বিশেষ করে কালের কণ্ঠ’র মতামত পাতাটি অত্যন্ত জনপ্রিয়। তাই অন্তত এ দুটি বিভাগের বিভাগীয় সম্পাদকদের নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ বজায় রাখতে হবে। ব্যক্তিগত বিরাগভাজন হয়ে সপ্তাহের পর সপ্তাহ লেখা কম গুরুত্বপূর্ণভাবে ছাপানোর প্রবণতা কারো লেখার প্রতি লক্ষণীয়!

হুমায়ুন কবির

হাজারীবাগ, ঢাকা।

 

► কালের কণ্ঠ একটি আলাদা জায়গা করে নিয়েছে আমাদের মনের ভেতর। কালের কণ্ঠ’র একটি পাতা, একটি কর্মকাণ্ড, যা শুভসংঘ নামে পরিচিত এবং এই কর্মকাণ্ড দিয়ে কালের কণ্ঠ অনেক ভালো কাজ করে আসছে এবং এই কাজগুলো সামাজিক নৈতিকতা উন্নয়নে বড় ভূমিকাও রাখছে। আমি চাই শুভসংঘ ছিন্নমূল শিশুদের নিয়ে কাজ করুক। এতে অনেক ছিন্নমূল শিশু শিক্ষার আলোয় আসতে পারবে বলে মনে করি। কালের কণ্ঠ’র পাঠক মতামতের জন্য চিঠিপত্র বিভাগটি রয়েছে, যাতে ছোট আকারে পাঠকদের মত প্রকাশ করা হয়ে থাকে। কিন্তু পাঠকের আয়না নামে কোনো পাতা সপ্তাহে এক দিন করা যায় কি না, তা ভেবে দেখার অনুরোধ রইল—যেখানে শুধু পাঠকের মতামত ও কলাম প্রকাশিত হবে।

সাঈদ চৌধুরী

শ্রীপুর, গাজীপুর।

 

► কালের কণ্ঠ’র সংবাদগুলো অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে সম্পাদনা করা হয়। বর্তমানে রংবেরং পাতা এবং বৃহস্পতিবারের রঙের মেলা পাতায় নায়ক-নায়িকাদের ছবিগুলো মাঝেমধ্যে বিব্রত করে। তাই এসব বিষয়ে আরো সাবধান হতে অনুরোধ করছি।

জহির উদ্দিন শেখ

চট্টগ্রাম কলেজ, চট্টগ্রাম।

 

► আরো বস্তুনিষ্ঠ, সৎসাহসী, প্রতিবাদী সংবাদ প্রকাশে কালের কণ্ঠ’র অবস্থান দৃঢ় হোক—এই প্রত্যাশা।

আসাদুল্লাহ মুক্ত

মহেশপুর, উল্লাপাড়া, সিরাজগঞ্জ।

 

► কালের কণ্ঠ’র পাঠকরা যেন গঠনমূলক সমালোচনা করতে পারে সে জন্য সাপ্তাহিক সমালোচনা বিভাগ সংযুক্ত করতে হবে। মাদক, নারী নির্যাতন, নারী উত্ত্যক্তকরণ প্রভৃতি সামাজিক সমস্যা দূর করতে কালের কণ্ঠকে যুগোপযোগী ভূমিকা পালন করতে হবে।

মোসাম্মৎ নাছিমা আক্তার

কাছিকাটা, মোরেলগঞ্জ, বাগেরহাট।

 

► কালের কণ্ঠ স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে পরিবারের সবার পড়ার অত্যন্ত মার্জিত একটি পত্রিকা।  দৈনিক পত্রিকার জগতে কালের কণ্ঠ সব সময় শীর্ষস্থান দখলে রাখুক—এই আমার একান্ত কামনা।

মো. দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া

লাকসাম, কুমিল্লা।

 

► ‘চলো ভালোবাসি সবাই সবাইকে’—কালের কণ্ঠ’র কাছেও আমাদের এই প্রত্যাশা। জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে কালের কণ্ঠ যথাযথ ভূমিকা রাখবে বলেই আমরা আশা করি।

এ কে এম আলমগীর

ও আর নিজাম রোড আবাসিক এলাকা, চট্টগ্রাম।

 

► পত্রিকাটি বাঙালি চেতনা হৃদয়ে ধারণ করে, দল-মত, জাতি-ধর্ম, ছোট-বড়, উঁচু-নিচু, সরকারি দল-বিরোধী দল, সবার সমন্বয়ে স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে তার এক ঝাঁক নিবেদিত, নির্ভীক সাংবাদিক নিয়ে এগিয়ে যাক বীরদর্পে—এটাই আমার প্রত্যাশা।

এইচ কে নাথ

চট্টগ্রাম।


মন্তব্য