kalerkantho


দুর্নীতিবাজদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



২০১৫ সালের পে স্কেল ঘোষণার পর সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দ্বিগুণ হয়েছে। সবার ধারণা ছিল এবার দুর্নীতি কমবে। অর্থমন্ত্রীও এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেছিলেন। প্রায় আড়াই বছর পর অর্থমন্ত্রী বললেন, ‘এখনো মূল্যায়নের সময় হয়নি। মূল্যায়নের জন্য আরেকটু সময় দিতে হবে। দুর্নীতি কমতেও একটু সময় লাগবে। যাদের স্বভাব নষ্ট হয়ে গেছে, তারা বদলাবে না।’ এখানে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের প্রশ্ন। যদি লোভ-লালসার প্রভাব বেড়ে যায় তাহলে দুর্নীতি বাড়বেই। সেখানে দুর্নীতি দমন কমিশনের কী করার থাকতে পারে? এরই মধ্যে দুদক অনেক রাঘব বোয়াল দুর্নীতিবাজকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু দুর্নীতিবাজরা পরবর্তী সময়ে আইনের ফাঁক বা রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ছাড়া পেয়ে যায় অথবা স্বপদে থেকে দুর্নীতির মাত্রা আরো বহু গুণ বাড়িয়ে দেয়। এ ক্ষেত্রে সরকারের কঠোর নীতি অবলম্বন করা উচিত। দলীয় দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা-ভাবনা না করে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে সরকারকে কঠোর অবস্থান নিতে হবে। তাহলেই দুর্নীতি দমন কমিশন কাজ করতে পারবে। দুদক গত ২৭ জুলাই থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত নতুন হটলাইনে অভিযোগ গ্রহণ করেছে। এ পর্যন্ত চার লাখ ১০ হাজার অভিযোগ জমা পড়েছে। এর আগে হটলাইন ছিল না বলে এত তথ্য প্রকাশিত হয়নি। এ উদ্যোগটি ভালো। দুদকের তালিকাটি পত্রিকায় প্রকাশ করা যেতে পারে। এতে দুর্নীতিবাজরা সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হবে। 

মিজানুর রহমান

বানাসুয়া, কুমিল্লা।


মন্তব্য