kalerkantho


পবিত্র কোরআনের আলো । ধা রা বা হি ক

মুসলিম সমাজে অশ্লীলতার প্রসার গর্হিত অপরাধ

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



মুসলিম সমাজে অশ্লীলতার প্রসার গর্হিত অপরাধ

৯০. আল্লাহ ইনসাফ, ইহসান ও আত্মীয়-স্বজনকে দান করার নির্দেশ দেন এবং তিনি অশ্লীলতা, অসৎ কাজ ও সীমা লঙ্ঘন করতে নিষেধ করেন। তিনি তোমাদের উপদেশ দেন, যেন তোমরা শিক্ষা গ্রহণ করো। [সুরা : নাহল, আয়াত : ৯০ (পঞ্চম পর্ব)]

তাফসির : আলোচ্য আয়াতে ইনসাফ, ইহসান ও আত্মীয়-স্বজনের প্রতি অনুগ্রহ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি অশ্লীলতা, অসৎ কাজ ও সীমা লঙ্ঘন করতে নিষেধ করা হয়েছে।

‘অশ্লীলতা’ শব্দের আরবি প্রতিশব্দ হিসেবে পবিত্র কোরআনে ‘ফাহশা’ ও ‘ফাহেশা’ শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। অভিধান মতে, অশ্লীলতা মানে কুিসত, জঘন্য, অশালীন, কুরুচিপূর্ণ ও কদর্যরুচি। সাধারণভাবে বলা যায়, লজ্জাহীনতা, রুচিহীনতা, অসুন্দর, অশোভন—এসবের সামষ্টিক রূপই হলো অশ্লীলতা।

আধুনিক যুগের প্রখ্যাত তাফসিরবিদ আল্লামা ইবনে আশুর (রহ.) লিখেছেন, ‘ফাহশা বা অশ্লীলতার শাব্দিক অর্থ হলো বৈধ সীমারেখা অতিক্রম করা। পরিভাষায়, ইসলামী শরিয়ত কর্তৃক অনুমোদিত কথা ও কাজের সীমা অতিক্রম করাই অশ্লীলতা।’ (আততাহরির ওয়াততানভির : ২০/১৭৯)

কিন্তু আল্লামা ইবনে কাসির (রহ.) এ সংজ্ঞা আরো স্পষ্ট ও সীমিত করে দিয়েছেন। তাঁর মতে, অশ্লীলতার সবচেয়ে বড় ক্ষেত্র হলো ব্যভিচার। কাজেই ব্যভিচার ও ব্যভিচারের প্রলুব্ধকারী সব ধরনের ইঙ্গিত, কথা, কাজ, চিত্র ও ভঙ্গিমা অশ্লীলতার অন্তর্ভুক্ত।

ইসলামে সব ধরনের অশ্লীলতা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘বলে দাও, আমার পালনকর্তা হারাম করেছেন প্রকাশ্য ও গোপন অশ্লীলতা, আর পাপ ও অসংগত বিরোধিতা এবং কোনো কিছুকে আল্লাহর শরিক করা—যার কোনো সনদ তিনি পাঠাননি ও আল্লাহ সম্পর্কে এমন কিছু বলা, যা তোমরা জানো না।’ (সুরা : আরাফ, আয়াত : ৩৩)

অশ্লীল কাজ সমাজে ছড়িয়ে দেওয়া অপরাধ। কারো গোপনীয় চরিত্র বা স্থিরচিত্র প্রকাশ করাও জঘন্যতম অশ্লীল কাজ। ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা ঈমানদারদের মধ্যে অশ্লীলতার প্রসার পছন্দ করে, তাদের জন্য ইহকাল ও পরকালে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি রয়েছে। আল্লাহ জানেন, তোমরা জানো না।’ (সুরা : নূর, আয়াত : ১৯)

ইসলামে কখনোই অশ্লীলতা, পৈশাচিকতা ও আদিম পশুত্বকে প্রশ্রয় দেওয়া হয়নি। মানব সভ্যতার ইতিহাসে অশ্লীলতা নির্মূলে ইসলাম সর্বাধিক কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। অশ্লীল পোশাক, অশ্লীল নৃত্য, জিনা-ব্যভিচার ও বল্গাহীন জীবনযাপনকে ইসলাম কঠোরভাবে নিষিদ্ধ করেছে। প্রকৃত ইসলামী সমাজব্যবস্থায় কখনোই অশ্লীলতা ও বেহায়াপনা স্থান পায়নি। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘তোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। কেননা এটা অশ্লীল ও নিকৃষ্ট আচরণ।’ (সুরা বনি ইসরাইল, আয়াত : ৩২০)

ইসলাম অশ্লীল কাজ হিসেবে ব্যভিচারকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। এ অপরাধের শাস্তি সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘ব্যভিচারী নারী ও ব্যভিচারী পুরুষ—তাদের প্রত্যেককে একশত বেত্রাঘাত করো।’ (সুরা : নূর, আয়াত : ২) আল্লাহ লজ্জাস্থান হেফাজতকারীকে ক্ষমা করার ঘোষণা দিয়েছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘...যৌনাঙ্গ হেফাজতকারী পুরুষ ও যৌনাঙ্গ হেফাজতকারী নারী; আল্লাহর অধিক জিকিরকারী পুরুষ ও জিকিরকারী নারী—তাদের জন্য আল্লাহ প্রস্তুত রেখেছেন ক্ষমা ও মহাপুরস্কার।’ (সুরা : আহজাব, আয়াত : ৩৫)

গ্রন্থনা : মাওলানা কাসেম শরীফ

 


মন্তব্য