kalerkantho


শরীয়তপুরে ৩ লঞ্চডুবি

যুবকের লাশ উদ্ধার, নিখোঁজ আরো ১২ জন

শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ওয়াপদা লঞ্চঘাটে পদ্মা নদীর ভাঙনে তিনটি লঞ্চ ডুবে গেছে। এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

তাঁর নাম সজল পাল (২৫)। লঞ্চে থাকা তিন যাত্রীসহ আরো ১২ জন লঞ্চকর্মী নিখোঁজ রয়েছেন। গতকাল সকাল ১০টা থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে বিআইডাব্লিউটিএ। একই সঙ্গে নৌবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস ও নৌ পুলিশ উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছে।

গত সোমবার পদ্মা নদীর ভাঙনের কারণে নড়িয়া উপজেলার ওয়াপদা লঞ্চঘাটের পন্টুন বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পানির স্রোতে পন্টুনে নোঙর করা তিনটি লঞ্চ ডুবে যায়। ডুবে যাওয়া মৌচাক লঞ্চটি ওই ঘাট থেকে ঢাকায়, নড়িয়া ২ ও মহানগরী লঞ্চটি নারায়ণগঞ্জে চলাচল করত।

নৌ পুলিশের সুরেশ্বর ফাঁড়ির উপপরিদর্শক জয়নাল আবেদিন বলেন, সকাল ৯টার দিকে নড়িয়ার সুরেশ্বর এলাকার পদ্মা নদীতে একটি

লাশ ভাসতে দেখে ফাঁড়িতে খবর দেয় স্থানীয় জেলেরা। লাশটি উদ্ধার করে তীরে এনে তাঁর পকেটে থাকা মুঠোফোনের নম্বর দেখে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।

প্রাথমিকভাবে তাঁরা জানান, লাশটি সজল পাল নামের এক যুবকের। তিনি খুলনার রূপসা থানার পিটাভোগ পালপাড়া এলাকার শ্রীকান্ত পালের ছেলে।

সজল পালের ভগ্নিপতি খুলনার সোনাডাঙা মডেল থানার উপপরিদর্শক দীপক পাল মুঠোফোনে বলেন, ‘বাড়িতে কাউকে কিছু না বলে সজল গত ৮ তারিখে বাড়ি থেকে বের হয়েছে। তার মুঠোফোনের অস্তিত্ব মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের একটি টাওয়ারে পাওয়া যায়। ৯ তারিখে লৌহজং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। নড়িয়া থানা পুলিশের পাঠানো ছবি দেখে তার চেহারা বোঝা যাচ্ছে না। পোশাক ও সঙ্গে থাকা ফোনের সিমকার্ড দেখে আমাদের ধারণা ওই মরদেহ সজলের হবে। ’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডাব্লিউটিএ) যুগ্ম পরিচালক (উদ্ধার) ফজলুর রহমান  বলেন, লঞ্চ তিনটি ও নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধার করার জন্য উদ্ধারযান প্রত্যয় সোমবার বিকেলে ভেদরগঞ্জ উপজেলার দুলার চর এলাকায় অবস্থান করছে। স্রোতের কারণে অভিযান চালাতে পারেনি। মঙ্গলবার সকালে নৌবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস ও বিআইডাব্লিউটিএর ডুবুরিরা উদ্ধার অভিযান শুরু করেছেন। একটি লঞ্চ দুলার চর এলাকায় শনাক্ত করা গেছে।


মন্তব্য