kalerkantho


সরকারি জমি দখল

বাস্তুহারা দুই পরিবারকে উচ্ছেদ প্রভাবশালীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওরাঞ্চল   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



কিশোরগঞ্জ বাজিতপুরের রতনপুর গ্রামে সড়কের ঢালে ঘর তুলে বাস করছিল বাস্তুহারা দুই পরিবার। এখন সড়ক ও জনপথ বিভাগের জায়গাটি দখল নিতে বসতঘর ভেঙে পরিবার দুটিকে উচ্ছেদ করেছেন স্থানীয় এক প্রভাবশালী।

গত সোমবার এ ঘটনা ঘটে। এর পর থেকে দুই পরিবারের সদস্যরা মানবেতর জীবন যাপন করছে।

গতকাল বুধবার প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কাছে লিখিত আবেদন করা হয়। এ ছাড়া ভাঙচুর-লুটপাটের অভিযোগ এনে থানার পুলিশের কাছেও অভিযোগ করা হয়েছে। ঘটনার তিন দিন পার হলেও পরিবার দুটি কোনো সহায়তা পায়নি।

জানা যায়, রাস্তার পাশের যে জায়গাটিতে পরিবার দুটি দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে, এর ঠিক ঢালের জমিটি তাতালচর গ্রামের প্রভাবশালী শিশু মিয়ার। উচ্ছেদের শিকার শোভা বেগম জানান, গত সোমবার সকালে শিশু মিয়ার নেতৃত্বে এক দল লোক হঠাৎ হামলা চালিয়ে তাঁদের ঘরটি ভেঙে দেয়। উচ্ছেদের শিকার শিপ্রা রানী জানান, ঘটনায় সময় তিনি ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। সঙ্গে ছিল তাঁর বৃদ্ধা মা ও মেয়ে।

তাঁর স্বামী দখলদারদের কাছে দুই ঘণ্টা সময় চেয়েছিলেন। কিন্তু ওরা কোনো সময়-সুযোগ না দিয়েই তাঁদের এভাবে উচ্ছেদ করে।   

তবে শিশু মিয়া পরিবার দুটিকে উচ্ছেদের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ জায়গার পেছনের ‘পালানে’ তাঁর জায়গা আছে। তাঁর ভাষায়, স্বাভাবিক কারণেই পালানের ওপরের জায়গা তিনি ভোগদখল করবেন। অন্য এলাকার কেউ এ জায়গায় থাকতে পারবে না। তিনি এ জায়গায় দোকানপাট করে ভাড়া দেবেন।   

এ ব্যাপারে বাজিতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহানা নাসরীন বলেন, ‘সরকারি ভূমিতে কেউ বসবাস করলে তাকে আমি (নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট) উচ্ছেদ করতে পারি। কিন্তু আর কেউ উচ্ছেদ করতে পারে না। সরেজমিনে দেখে এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

বাজিতপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আহমেদ জানান, অভিযোগের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

দিলালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের কেউ তাঁর কাছে অভিযোগ নিয়ে যায়নি। একটি ছেলের কাছ থেকে ঘটনাটি শুনেছেন। ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ করলে তিনি এ ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন।


মন্তব্য