kalerkantho


ট্রাফিক পুলিশের হাতে লাঞ্ছনার প্রতিবাদ

বরিশালে বাস শ্রমিকদের বিক্ষোভ, ভোগান্তি

বরিশাল অফিস   

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ট্রাফিক পুলিশের হাতে বাস শ্রমিক লাঞ্ছিত হওয়ার প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার সকালে বরিশাল রূপাতলী বাস টার্মিনালে বিক্ষোভ করেছে শ্রমিকরা। বিক্ষোভকালে প্রায় এক ঘণ্টা বিভাগের সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়ে যাত্রীরা।

রূপাতলী গোলচত্বরে রাস্তার ওপরে থাকা একটি বাস কাউন্টার অপসারণকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে এক শ্রমিকের বাগিবতণ্ডা ও মারধরের ওই ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রূপাতলী-পটুয়াখালী রুটে রূপাতলী গোলচত্বরে রাস্তার ওপর বাকেরগঞ্জের বাসের একটি কাউন্টার আছে। ওই কাউন্টারটির কারণে পরিবহন ও জনচলাচলে অসুবিধা হচ্ছিল। এ কারণে কয়েক মাস ধরে পুলিশের পক্ষ থেকে সেটি অপসারণের জন্য বাস কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা সেটি অপসারণ না করায় গতকাল সকালে ট্রফিক পুলিশের সার্জেন্ট মো. রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে সেটি অপসারণ করে রাস্তার এক পাশে রাখা হয়।

এ সময়ে কাউন্টারে অবস্থান করা বাস শ্রমিক ইমরান হোসেনের সঙ্গে পুলিশের বাগিবতণ্ডার একপর্যায়ে ইমরানকে মারধর করা হয়। এ ঘটনায় ওই বাসস্ট্যান্ডের সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত সব রুটে বাস বন্ধ রেখে বিক্ষোভ করা হয়। ফলে বিভিন্ন রুটের যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

বকেরগঞ্জ টিকিট কাউন্টার ইনচার্জ মো. সোহেল মোল্লাহ জানান, আগে-পরে কোনো প্রকার নোটিশ না দিয়েই ট্রাফিক পুলিশ এসে সেটা ভাঙচুর শুরু করে।

এ সময়ে ইমরান বাধা দিলে তাঁকে মারধর করা হয়। কাউন্টারের আসবাবপত্রও ভাঙচুর করা হয়।

রূপাতলী বাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. সুলতান মাহমুদ বলেন, ‘ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। এতে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে কিছু সময়ের জন্য বাস বন্ধ রেখে বিক্ষোভ করেন। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে এবং বাস চলাচল করছে। ’

মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি ট্রফিক) উত্তম কুমার পাল সাংবাদিকদের বলেন, সড়কের ওপরে ওই কাউন্টারটি থাকায় যাত্রীদের চলাচলে অসুবিধা হচ্ছিল। এর আগে কাউন্টারটি সরিয়ে নিতে বাস মালিক সমিতিকে বলা হয়েছিল। কাউন্টারটি সরিয়ে না নেওয়ায় পুলিশের পক্ষ থেকে গতকাল তা সরিয়ে রাস্তার পাশে রাখা হয়েছে। এ সময়ে কাউকে মারধর করার ঘটনা ঘটেনি।


মন্তব্য