kalerkantho


৫০ হাজার ইয়াবাসহ ২ সেনা সদস্য আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কক্সবাজার থেকে ৫০ হাজার ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে চট্টগ্রামে আসার পথে কর্ণফুলী থানাধীন মইজ্জ্যারটেক এলাকায় দুজন সেনা সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। তাঁদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। দুজনকে পরে সেনাবাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। গত শনিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃতরা হলেন নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার আবু তাহেরের ছেলে সৈনিক মোহাম্মদ শিহাব উদ্দিন (৩৮) ও পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার নজরুল ইসলামের ছেলে সৈনিক শফিকুল ইসলাম (২৮)। তাঁরা দুজনই চট্টগ্রাম সেনানিবাসে কর্মরত।

কর্ণফুলী থানার ওসি সৈয়দুল মোস্তফা জানান, কক্সবাজার থেকে দুজন যাত্রী মইজ্জ্যারটেক এসে গাড়ি থেকে নেমে অন্য গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। তখন সাদা পোশাকধারী পুলিশের সন্দেহ হলে তাঁদের দেহ তল্লাশি করা হয়। এ সময় তাঁদের কাছে ৫০ হাজার ইয়াবা পাওয়া যায়।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, ইয়াবাসহ আটকের পর দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাঁদের পরিচয় জানা যায়। এরপর সেনানিবাসে খবর দেওয়া হয়। রাতেই সেনানিবাস থেকে একদল সেনা সদস্য কর্ণফুলী থানায় গিয়ে আটককৃত দুই সেনা সদস্যকে সাধারণ ডায়েরিমূলে গ্রহণ করে নিয়ে যান। তবে কর্ণফুলী থানায় দুজনের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করেছে পুলিশ।

পুলিশ কর্মকর্তাদের ভাষ্য অনুযায়ী, দুই আসামি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানিয়েছেন যে তাঁরা কক্সবাজারের কলাতলী এলাকার আলম নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো নিয়েছেন। এগুলো চট্টগ্রাম নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানা এলাকার আইনুদ্দীন নামের একজনের কাছে হস্তান্তরের কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই দুজন পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হন।

এদিকে আন্তঃবাহিনী গণসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল রাশিদুল হাসানকে উদ্ধৃত করে বিবিসি বাংলা বলেছে, অভিযুক্ত দুজনের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাঁদের চাকরিচ্যুতও করা হতে পারে। সে সম্ভাবনাই  বেশি। তবে তার আগে এ ঘটনার তদন্ত হবে। এরপর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল রাশিদুল হাসান বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, ‘সেনাবাহিনীতে কোনো ধরনের অপরাধমূলক ঘটনার মাফ নেই।’


মন্তব্য