kalerkantho


ভৈরবে সারের সেই গুদাম খুলল তিন বছর পর

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিএডিসি সার গুদাম তিন বছর পর খুলে দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার ৪০ মেট্রিক টন সার গুদামজাত করার মধ্য দিয়ে সেটির কার্যক্রম শুরু হয়।

২০১৪ সালের ১৬ নভেম্বর কালের কণ্ঠে ‘গুদামখাদক! রক্ষক’ শিরোনামে সার কেলেঙ্কারির একটি সংবাদ ছাপা হয়। ওই সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে গুদামটি সিলগালা করে দেয় কর্তৃপক্ষ।

কিশোরগঞ্জ বিএডিসির যুগ্ম পরিচালক এ এফ এম শফিকুল ইসলাম গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে গুদামটি চালু করেন। তিনি জানান, আপাতত কিশোরগঞ্জের চার উপজেলার পরিবেশকরা ওই গুদাম থেকে নন-ইউরিয়া সার উত্তোলন করতে পারবে। পরে এর পরিধি বাড়ানো হবে।

বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএ) পরিচালক আসাদুজ্জামান ফারুক জানান, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, নরসিংদী ও কিশোরগঞ্জের ডিলাররা ওই গুদাম থেকে নন-ইউরিয়া সার নিয়ে এলাকায় কৃষকদের কাছে বিক্রি করত। গুদামটির কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেলে ওই সব এলাকার সার ব্যবসায়ী ও কৃষকরা বিপাকে পড়ে যায়। এ অবস্থায় সার ডিলার সমিতির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গুদামটি খুলে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের নভেম্বরে গুদামের প্রায় ৯৬ হাজার বস্তা সার চুরির ঘটনা প্রকাশ পায়। এ ঘটনার পর পালিয়ে যায় গুদামরক্ষক খোরশেদ আলম ও সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম। পরে ওই দুজনের বিরুদ্ধে ভৈরব থানায় মামলা করেন কিশোরগঞ্জ জেলা বিএডিসির যুগ্ম পরিচালক। মামলার পর পুলিশ খোরশেদ আলম ও রেজাউল করিমকে গ্রেপ্তার করে। একসময় মামলার তদন্তের দায়িত্ব যায় দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক)। দীর্ঘ তদন্ত শেষে দুদক গ্রেপ্তারকৃত দুজনসহ আটজনের বিরুদ্ধে কিশোরগঞ্জ আদালতে চার্জশিট দেয়।


মন্তব্য