kalerkantho


শ্রীপুরে ঢালাইয়ের পর ছাদ ধসে একজনের মৃত্যু আহত ৮

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর   

৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



শ্রীপুরে ঢালাইয়ের পর ছাদ ধসে একজনের মৃত্যু আহত ৮

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর গ্রামে ঢালাইয়ের পরই ছাদ ধসে পড়ে। এতে একজন নিহত ও আটজন আহত হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

নির্মীয়মাণ দোতলা একটি ভবন বর্ধিত করার জন্য সেখানে ছাদ ঢালাইয়ের কাজ চলছিল। ওই ছাদের নিচে কাজ করছিলেন অন্তত ২০ থেকে ২৫ জন নির্মাণ শ্রমিক। ঢালাইয়ের কাজ শেষ হওয়ার পরই ছাদটি ধসে পড়ে। ওই সময় নির্মাণ শ্রমিকদের বেশির ভাগই সরে গেলেও ৯ জন চাপা পড়েন।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার প্রহ্লাদপুর ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে।

দুর্বল শাটারিংয়ের (অস্থায়ী কাঠামো) কারণে ঢালাই শেষ হওয়ার পরই তা ধসে পড়ে বলে শ্রীপুর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) হেলাল উদ্দিন জানিয়েছেন।

খবর পেয়ে পাশের জয়দেবপুর ও টঙ্গী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থল পৌঁছে এক নির্মাণ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করে। ধসে পড়া ছাদ সরিয়ে উদ্ধার করা হয় আরো আট নির্মাণ শ্রমিককে। তাঁদের মধ্যে চারজনকে ঢাকা ও গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

নিহতের নাম ফকির আলী (২২)। তিনি জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার চরমহুরিহাট গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে।

আহতরা হলেন রহিম বাদশা (২৫), মাহিদুল (২৪), মিন্টু (২২) ও ইকবাল হোসেন।

নির্মাণাধীন ছাদ ধসে পড়ার কারণ উদ্ঘাটনের জন্য গাজীপুর জেলা প্রশাসন ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। গঠন করা তদন্ত কমিটি আগামী পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেবে। এ ছাড়া নিহত নির্মাণ শ্রমিকের মরদেহ দাফনের জন্য ২০ হাজার টাকা মানবিক সহায়তা দিয়েছেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক।

এলাকাবাসী জানায়, নিশ্চিন্তপুর গ্রামে ভিশন শিল্প গ্রুপের একটি রিসোর্ট রয়েছে। সেখানে দোতলা একটি ভবনের নির্মাণকাজ চলছিল।

কয়েকজন নির্মাণ শ্রমিক জানান, দোতলা ভবনের দক্ষিণ-উত্তর পাশে বর্ধিত করে সেখানে ছাদ নির্মাণের উদ্যোগ নেন রিসোর্টের মালিক ড. আবদুল হামিদ। প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে শাটারিং নির্মাণের পর গতকাল সকাল থেকে ঢালাইয়ের কাজ শুরু হয়।

নির্মাণ শ্রমিক আবুল হোসেন জানান, গতকাল দুপুর ১২টার দিকে ঢালাইয়ের কাজ শেষ হয়। এর প্রায় আধাঘণ্টা পরই ছাদের একটি অংশ ধসে পড়ে। ওই সময় বেশির ভাগ নির্মাণ শ্রমিকই সরে গেলেও ৯ জন তাতে চাপা পড়েন।

প্রহ্লাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য ইজ্জত আলী খান জানান, নির্মাণ শ্রমিকদের চিৎকারে টের পেয়ে গ্রামবাসী ছুটে গেলেও ধসে পড়া ছাদ সরাতে ব্যর্থ হয়। ফলে তাত্ক্ষণিক চাপা পড়া নির্মাণ শ্রমিকদের উদ্ধার করা যায়নি। খবর পেয়ে জয়দেবপুর ও টঙ্গী ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থল পৌঁছে এক নির্মাণ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করে।


মন্তব্য