kalerkantho


কিশোরগঞ্জ শহরে আইনজীবীর বাসায় ডাকাতি

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি   

৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কিশোরগঞ্জ শহরে এক আইনজীবীর বাসায় ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সোমবার ভোরে শহরের শিক্ষকপল্লীর কাছে রাকুয়াইল এলাকার বাসিন্দা অ্যাডভোকেট ওয়াছিল আহমেদ সাদেক টিটুর বাসা থেকে ডাকাতরা ১৭ ভরি স্বর্ণালংকার ও ৩০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে গেছে।

আইনজীবীর ভাই ওয়ারেছ আহমেদ সাদেক লিপু জানান, ভোর ৪টার দিকে মুখোশধারী ডাকাতদল বাসার দারোয়ান সফুরউদ্দিনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বেঁধে ফেলে। পরে তারা বাসার সামনের জানালা কেটে ভেতরে ঢুকে পেছনের দরজা খুলে দিলে সাত-আটজন অস্ত্রধারী ডাকাত ঘরে ঢোকে। তিনি জানান, প্রথমে তাঁকে ধরে বিছানার সঙ্গে বেঁধে ফেলে ডাকাতদল। পরে তাঁর স্ত্রী মুন্নি, দুই শিশুসন্তান ভুবন ও গগনকেও একই কায়দায় বাঁধে তারা। এরপর তাঁর বড় ভাই আইনজীবী টিটুর বুকে রিভলবার ঠেকিয়ে তাঁকেও বাঁধা হয়। কিন্তু তাঁর স্ত্রীকে বাঁধেনি ডাকাতরা। এরা সংখ্যায় সাত-আটজন। সবার বয়সই ২৫ থেকে ৩০ এর মধ্যে।’ পরিবারের অন্য সদস্যরা জানায়, ডাকাতদল বাসার জানালাটি কাগজের মতো কেটে ফেলেছে, যার শব্দও তারা পায়নি। যাওয়ার সময় তারা এক রাউন্ড গুলিও ছুড়েছে। খবর পেয়ে প্রথমে র‌্যাব-১৪ কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে জেলা পুলিশের এএসপি নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ ও ডিবি সদস্যরাও ঘটনাস্থলে হাজির হন।

এ সময় কথা হয় কিশোরগঞ্জ পৌরসভার-১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইসমাইল হোসেন ইদুর সঙ্গে। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘শহরে এ ধরনের ঘটনা আমাদের বিস্মিত করেছে। কিছুদিন আগে এলাকায় এ ধরনের আরো কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু পুলিশ এর কোনো ব্যবস্থাই নিতে পারেনি। এটা খুবই হতাশাজনক।’ এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) মো. আরিফুর রহমান বলেন, ‘এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। ঘটনাটি খুব গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হয়েছে। পুলিশের একাধিক টিম ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে।’ এলাকাবাসী জানায়, গত ২২ ডিসেম্বর একই এলাকার সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাবেক প্রকৌশলী মফিজ উদ্দিনের দোতলা বাসা থেকে ডাকাতরা ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ও ৮০ হাজার টাকা লুট করে।


মন্তব্য