kalerkantho


ডিএনসিসি মেয়র উপনির্বাচন

২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হচ্ছেন তাবিথ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদের উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে গতবারের প্রার্থী তাবিথ আউয়ালই থাকছেন। কেবল বিএনপির নয়, ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির এই সদস্য। ইতিমধ্যে জোটের প্রধান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তাঁকে ‘সবুজ সংকেত’ দিয়েছেন বলে দল ও জোট সূত্রে জানা গেছে।

জোটের শরিক জামায়াতের মহানগর উত্তরের নেতা সেলিম উদ্দীন কয়েক দিন আগে নিজেকে দলের প্রার্থী ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু গত সোমবার ২০ দলীয় জোটের বৈঠক শেষে জামায়াতের পক্ষ থেকে স্পষ্ট করা হয়েছে যে সেলিম উদ্দিন মাঠে থাকছেন না।

নির্বাচনী কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য ইতিমধ্যে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে অফিস নিয়েছেন তাবিথ আউয়াল। তাঁর পক্ষে খালেদা জিয়াও প্রচার চালাতে পারেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

তবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন, বিএনপি আগামী ১৩ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করবে।

গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করব। আমাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে জাতীয় স্থায়ী কমিটি সভায়। এই সভা আশা করছি আগামী শনিবার অনুষ্ঠিত হবে।’

দলীয় সূত্রগুলো বলছে, গত রবিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন তাবিথ আউয়াল। তখন খালেদা জিয়া তাঁকে প্রস্তুতি নেওয়ার পরামর্শ দেন। উপস্থিত নেতাদের ডেকে তাবিথকে সহায়তা করারও নির্দেশ দেন।

দলীয় প্রধানের নির্দেশের পরপরই নির্বাচনী কর্মকাণ্ড শুরু করেছেন তাবিথ আউয়াল। প্রাথমিক প্রস্তুতি হিসেবে নির্বাচন পরিচালনার জন্য রাজধানীর তেজগাঁও শিল্প এলাকায় ৪১৯-৪২০ হোল্ডিংয়ে অফিস নেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তিনি (তাবিথ) প্রচার চালানোর জন্য নির্বাচনী অফিস নিয়েছেন। সেখান থেকে নির্বাচনসংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা হবে।’

১৩ জানুয়ারি প্রার্থী ঘোষণা : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আগামী শনিবার দলীয় মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে জানিয়ে ভোটগ্রহণের সাত দিন আগেই সেনা মোতায়েন চেয়েছে বিএনপি। গতকাল বিকেলে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচে দলের এক নেতার জানাজা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ফখরুল এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, ‘আমরা অবশ্যই চাইব, এখানে সেনাবাহিনী নিয়োগ করা হয় যেন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য শুধু নয়, নির্বাচনের সাত দিন আগে থেকে আমরা সেনাবাহিনী মোতায়েন চাই।’

সোমবার রাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠক এবং জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী ঘোষণার প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘২০ দলীয় জোট নেতারা আমাদের জোট নেত্রী খালেদা জিয়ার ওপর দায়িত্ব দিয়েছেন, তিনি যে মনোনয়ন দেবেন সেই মনোনয়নকে সমর্থন করবেন।’


মন্তব্য