kalerkantho


ডিএনএ টেস্টে মা নিশ্চিত হলেন শিশুটি নিজের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ময়মনসিংহ   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



হাসপাতালে নবজাতক বদলে ফেলার অভিযোগটি এক মাস পর মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে ডিএনএ টেস্টের মাধ্যমে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আলোচিত কন্যাশিশুকে তুলে দেওয়া হয়েছে মায়ের কোলে।

সূত্র জানায়, ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গত ১০ ডিসেম্বর বাদেকল্পা গ্রামের মনোয়ার হোসেন মনুর স্ত্রী পাপিয়া আক্তার সন্তান প্রসব করেন। গাইনি ওয়ার্ডে মায়ের কাছে কিছুক্ষণ রাখার পর শিশুটিকে অসুস্থতার কারণে সেদিনই হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়। ১৮ ডিসেম্বর বিকেলে হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেওয়ার সময় বাধে বিপত্তি। শিশুটিকে হস্তান্তর করা হলে মা পাপিয়া আক্তার আপত্তি তোলেন। ছেলেশিশুর বদলে তাঁকে কন্যাশিশু দেওয়া হচ্ছে বলে দাবি করেন। এ অবস্থায় বিপাকে পড়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। নানা তথ্য-প্রমাণ দিলেও শিশুর মা-বাবা তাঁদের দাবিতে অনড় থাকেন।

বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় মামলা করে ডিএনএ টেস্টের উদ্যোগ নেয়। পুলিশের তদন্ত ও ডিএনএ টেস্টের ফল বিশ্লেষণে এক মাস পর নিশ্চিত হওয়া গেছে, কন্যাশিশুটি অন্য কারো নয় অভিযোগকারী দম্পতির। গতকাল দুপুরে আদালতের নির্দেশে মা পাপিয়ার কাছে কন্যাশিশুকে তুলে দেওয়া হয়েছে। এখন সন্তান ফিরে পেয়ে তিনি আনন্দিত।

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, নবজাতক ওয়ার্ডে কোনো কারসাজি হয়নি সেটি প্রমাণিত হয়েছে। এ ঘটনা ভবিষ্যতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক করবে।


মন্তব্য