kalerkantho


পুলিশের ধাওয়ায় ত্রিশালে নিখোঁজ যুবকের লাশ উদ্ধার

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ময়মনসিংহের ত্রিশালের শুকনি বিলে দুই দিন খোঁজাখুঁজির পর কচুরিপানার নিচ থেকে গতকাল রবিবার দুপুরে সজিব আহমেদের (১৮) মৃতদেহ উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী। পুলিশের ধাওয়া খেয়ে গত শুক্রবার বিকেলে ওই বিলে ঝাঁপ দেয় সজিব আহমেদ।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, ভালুকা উপজেলার জমিরদিয়া মাস্টারবাড়ির একটি কারখানায় কর্মরত ছিলেন সজিব। গত শুক্রবার তিনি ছুটিতে বাড়ি আসেন এবং বিকেলে বাড়ির পাশে শুকনি বিলের পাড়ে বন্ধুদের সঙ্গে তাস খেলছিলেন। ওই সময় ঘটনাস্থলে গিয়ে ধাওয়া দেয় ত্রিশাল থানা পুলিশ। ধাওয়া খেয়ে শুকনি বিলে ঝাঁপ দেন সজিবসহ আরো দুজন। পরে অন্য দুজন বিলের পানি থেকে ওপরে উঠে পুলিশের কাছে ধরা দিলেও তীরে উঠে আসেননি ত্রিশাল পৌরসভার চরপাড়া গ্রামের সাইফুল ইসলামের ছেলে সজিব। এরপর এলাকাবাসী বিলের কচুরিপানা সরিয়ে সজিবের খোঁজ করতে থাকে। গতকাল রবিবার দুপুর দেড়টার দিকে উদ্ধার হয় সজিব আহমেদের মরদেহ। পরে স্থানীয় জনতা সজিবের লাশ নিয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ ও থানা ঘেরাও করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, পুলিশের ধাওয়া খেয়ে সজিব বিলের পানিতে নিখোঁজ হলেও তাঁকে উদ্ধারে তৎপরতা দেখায়নি পুলিশ। 

সজিবের চাচা শহিদুল হক বলেন, ‘পুলিশের ধাওয়ায় আমার ভাতিজা বিলে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ হয়। দুই দিন খোঁজাখুঁজির পর রবিবার আমরা লাশ খুঁজে পাই।’

ত্রিশাল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) ফায়েজুর রহমান কালের কণ্ঠকে জানান, গত শুক্রবার বিকেলে একটি জুয়ার আসর থেকে ছয় জুয়াড়িকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। ওই সময় আরো কয়েকজন জুয়াড়ি ওই আসর থেকে পালিয়ে যায়। পরে জানা যায়, পুলিশের ভয়ে বিলে ঝাঁপ দেওয়া সজিব নামের এক যুবককে পাওয়া যাচ্ছে না। স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের উপস্থিতিতে শুকনি বিলে দীর্ঘ সময় উদ্ধার তৎপরতা চালায় ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল। পরে ওই বিল থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।


মন্তব্য