kalerkantho


হাইকোর্টের আদেশ স্থগিতই থাকল

ফোরজির দরপত্র কার্যক্রম চালাতে বাধা কাটল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চতুর্থ প্রজন্মের (ফোরজি) ইন্টারনেট সেবার মোবাইল ফোন সার্ভিসের লাইসেন্সের জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) দরপত্র কার্যক্রম চালাতে আর আইনি বাধা থাকল না। কেননা ওই কার্যক্রম বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশের ওপর চেম্বার বিচারপতির দেওয়া স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে এ বিষয়ে হাইকোর্টে বিচারাধীন রুল ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অস্থায়ী প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ গতকাল রবিবার ওই আদেশ দেন। হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে বিটিআরসির করা আবেদন নিষ্পত্তি করে এ আদেশ দেওয়া হয়।

আদালতে বিটিআরসির পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ব্যারিস্টার খন্দকার রেজা-ই-রাকিব। রিট আবেদনকারী বাংলা লায়ন কমিউনিকেশনস লিমিটেডের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ ও অ্যাডভোকেট রমজান আলী শিকদার।

হাইকোর্ট গত ১১ জানুয়ারি বিটিআরসির জারি করা দরপত্র কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশের পাশাপাশি রুল জারি করেন। রুলে বিটিআরসির গত বছর ৪ ডিসেম্বর দেওয়া বিজ্ঞপ্তি এবং ওয়্যারলেস ব্রডব্যান্ড নীতিমালা-২০০৮ এর ৪.০২ এবং ৪.০৬(৩) নীতি ২০১৭ সালের নীতিমালার সঙ্গে সাংঘর্ষিক হিসেবে তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চাওয়া হয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব, বিটিআরসির লাইসেন্সিং ডিভিশনের মহাপরিচালকসহ ছয়জনকে চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

ওই দিনই এ আদেশের বিরুদ্ধে বিটিআরসির করা আবেদনে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন হাইকোর্টের ওই আদেশ ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত স্থগিত করেন। একই সঙ্গে বিটিআরসির আবেদনের ওপর আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে ১৪ জানুয়ারি শুনানির দিন ধার্য করেন। সে অনুযায়ী গতকাল নির্ধারিত দিনে বিটিআরসির আবেদনের ওপর শুনানি হয়।


মন্তব্য