kalerkantho


জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের

পাথরঘাটায় হিন্দু পরিবারের ওপর হামলা, আহত ৭

পাথরঘাটা (বরগুনা) প্রতিনিধি   

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বরগুনার পাথরঘাটায় পৌরসভার বড়ইতলা গ্রামে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দরিদ্র এক হিন্দু পরিবারের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে ওই পরিবারের বৃদ্ধ নারীসহ সাতজন আহত হয়েছে। এর মধ্যে দুজনকে গুরুতর অবস্থায় পাথরঘাটা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে কার্তিক চন্দ্র শীলের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

গতকাল বৃহস্পতিবার কার্তিক চন্দ্র শীল পাথরঘাটা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সমম্মেলনে জানান, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশী এনায়েত হোসেনের পরিবারের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে তাঁর। এ ব্যাপারে তিনটি মামলা হলে আদালতের রায় পান তিনি। এর মধ্যে গত বুধবার দুপুরে পুরনো ঘর মেরামত করতে গেলে এনায়েতের লোকজন বাধা দেয়। একপর্যায়ে হামলা চালিয়ে পরিবারের  সাতজনকে আহত করে। হামলাকারীরা ছিল পৌর মেয়র মো. আনোয়ার হোসেন আকনের লোক।

কার্তিক শীলের ভাতিজি কলেজছাত্রী সীমা রানী বলেন, ‘আমার বাবা বিমল শীলকে রক্ষা করতে গিয়ে মার খেয়েছি।’

কার্তিক চন্দ্র শীলের ভাই বিমল শীল বলেন, ‘দিনের বেলা মেয়র আমাদের মারে আবার রাতে বাড়িতে ভোট প্রার্থনা করতে যায়। হামলাকারীদের মধ্যে ছিল এনায়েতের ভাগ্নে পটুয়াখালীর পুলিশ কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, তার ভাই মো. খোকন, পৌরসভার লাইসেন্স পরিদর্শক বিপ্লব রায়, পৌরসভার নৈশ প্রহরী বাদল ও রাখাল শীল।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিমল শীল, শ্যামলী রানী, মিলন চন্দ্র শীল, সীমা রানী ও শেফালী রানী।

এ ব্যাপারে পাথরঘাটা পৌরসভার মেয়র মো. আনোয়ার হোসেন আকন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে পৌর ভবনে দুপুরের দিকে বৈঠক হয়েছে। সেখানে সাতজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের পাথরঘাটা উপজেলা সভাপতি অরুণ কর্মকার উপস্থিত ছিলেন। পরস্পর কোলাকুলি করেছি। অচিরেই সালিস করে জমির বিরোধ মীমাংসা করা হবে।’

পাথরঘাটা উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের পাথরঘাটা উপজেলা সভাপতি অরুণ কর্মকার বলেন, ‘প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের পর দুপুরের দিকে পৌরসভা ভবনে বিষয়টি নিয়ে এক বৈঠক হয়েছে। মেয়র প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, বিরোধপূর্ণ জমি সালিসের মাধ্যমে মীমাংসা করা হবে।’ পাথরঘাটা থানার ওসি মোল্লা মো. খবীর আহমেদ বলেন, ‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তবে কেউ থানায় মামলা করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।’


মন্তব্য