kalerkantho


অধিভুক্ত সাত কলেজ

পাঁচ দাবিতে শিক্ষার্থীদের নীলক্ষেত অবরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক    

১৯ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



পাঁচ দাবিতে শিক্ষার্থীদের নীলক্ষেত অবরোধ

রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফলাফল, একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশসহ বিভিন্ন দাবিতে গতকাল বিক্ষোভ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

পরীক্ষার ফল প্রকাশ ও ক্লাস শুরুসহ পাঁচ দফা দাবিতে আবারও আন্দোলনে নেমেছে অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর ব্যস্ততম সড়ক নীলক্ষেত মোড়ে সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত অবরোধ করে তারা বিক্ষোভ করেছে। দ্রুততম সময়ে ফল প্রকাশ করা হবে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের আশ্বাসে তারা আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেয়।

শিক্ষার্থীদের পাঁচ দফা দাবি হচ্ছে অনার্স ২০১৪-১৫ সেশনের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফল জানুয়ারির মধ্যে প্রকাশ, মার্চের মধ্যেই ২০১৪-১৫ সেশনের তৃতীয় বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু করা; অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশ; ২০১২-১৩ সেশনসহ সব সেশনের চূড়ান্ত পরীক্ষা দ্রুত সম্পন্ন করা এবং ডিগ্রির সব সেশনের আটকে থাকা পরীক্ষা ও পরীক্ষার ফলাফল দ্রুত প্রকাশ করা।

প্রশাসন বলছে, ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের চূড়ান্ত ফল প্রকাশে কিছু তথ্য তারা এখনো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পায়নি। তবে অনেক তথ্যই এসেছে। কিছু তথ্যের জন্য আবারও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে দ্রুততম সময়ে ফল প্রকাশ করা সম্ভব হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছে, পূর্ব ঘোষণা মতে, রাজধানীর সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা গতকাল নীলক্ষেত মোড়ে জড়ো হয়। সকাল ১১টার দিকে কয়েক শ শিক্ষার্থী মিলে নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করে। এতে চারদিকের যান চলাচল বন্ধ হলে আশপাশের এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। দুপুর ২টা পর্যন্ত অবরোধের পর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান অবরোধ স্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে দ্রুততম সময়ে ফল প্রকাশ করা হবে বলে আশ্বাস দেন।

উপাচার্য বলেন, আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে। পরে শিক্ষার্থীরা ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাদের আন্দোলন স্থগিত করে দিনের কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেয়।

এদিকে ছাত্রী নিপীড়নে জড়িত আট ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে বহিষ্কারের জন্য তদন্ত কমিটি গঠন এবং তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়।

উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের কার্যক্রম পরিচালনায় আমাদের কোনো পূর্বপ্রস্তুতি ছিল না। সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। আর কোনো বিষয়ের দায়িত্ব নিতে হলে প্রস্তুতি দরকার। কিন্তু এ ক্ষেত্রে আমাদের কোনো কিছুই ছিল না। তবু দায়িত্ব যেহেতু দেওয়া হয়েছে, চালিয়ে নিতে হবে।’


মন্তব্য