kalerkantho


বাগমারায় এমপি ও মেয়র গ্রুপের মধ্যে মারামারি

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজশাহীর বাগমারায় স্থানীয় সংসদ সদস্য এনামুল হক ও তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদের সমর্থকদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। গত শুক্রবার রাতের এ ঘটনায় আমান উল্লাহ নামে সংসদ সদস্যের এক সমর্থক আহত হয়েছেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে তাহেরপুরের পেঁয়াজহাট দিয়ে যাচ্ছিল মেয়র কালামসহ তাঁর কয়েকজন সমর্থক। এ সময় একটি ওষুধের দোকান থেকে আমান, শাহীসহ কয়েকজন নেতাকর্মী মেয়র কালামকে উদ্দেশ কটূক্তি করে। এতে মেয়রের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে বাগিবতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে দুই গ্রুপের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ সময় মেয়র কালামের লোকজন আমানকে বেদম পিটিয়ে আহত করে। এ ছাড়া সংসদ সদস্যের সমর্থক আওয়ামী লীগ নেতা শাহীকে লাঞ্ছিত করা হয়। পরে স্থানীয় লোকজন আমানকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করে।

আমানের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন রামেক হাসপাতালের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক অধ্যাপক রেজাউল হক। তিনি বলেন, ‘বমি করার লক্ষণটি ভালো না। মাথায় গুরুতর আঘাতে থেঁতলে গেছে। এর ফলে রক্ত জমাট বেঁধেছে। ব্রেনের আঘাতের কারণে মাঝেমধ্যে তাঁর জ্ঞান থাকছে না।’

আমানের দাবি, মেয়র নিজে পিস্তলের বাঁট দিয়ে পিটিয়ে তাঁকে আহত করেছেন।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমি ওই সময় বাড়ির দিকে যাচ্ছিলাম। এ সময় একটি ওষুধের দোকানের পাশে কয়েকজন সর্বহারা ক্যাডার আমাদের দেখে অশ্লীল মন্তব্য করে। এ নিয়ে ধস্তাধস্তির কারণে একজন পড়ে গিয়ে সামান্য আহত হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, গত সেপ্টেম্বরে সংবাদ সম্মেলন করে সংসদ সদস্য এনামুল হককে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন না দিতে দলীয় প্রধানের প্রতি অনুরোধ করা হয়। ওই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিল বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম সান্টু, তাহেরপুর পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদসহ তাঁদের অনুসারীরা। এ ঘটনায় গত অক্টোবরে ৯ নেতার পদ সাময়িকভাবে স্থগিত করে অব্যাহতির জন্য কেন্দ্রের কাছে সুপারিশ করে জেলা আওয়ামী লীগ।


মন্তব্য