kalerkantho


১৪৪ ধারা জারি

কুষ্টিয়ায় জাসদ ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও উপজেলা ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কায় সেখানে ১৪৪ ধারা জারি ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার সকাল ১১টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সেখানে রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধে এই আদেশ জারি করেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহীনুজ্জামান। শহর এলাকায় সকাল সাড়ে ১০টা থেকে মাইকিং করে তা প্রচার করা হয়। গতকাল দুপুর ৩টায় জাসদ উপজেলা শাখা ও ছাত্রলীগ উপজেলা শাখা শহরের থানা মোড়ের গড়াই কমপ্লেক্সের তৃতীয় ও নিচতলায় পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণা করে।

পুলিশ সূত্র জানায়, রাজনৈতিক দুটি সংগঠন একই ভবনের ওপর ও নিচতলায় একই সময়ে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণা করায় উত্তেজনা এবং আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে আশঙ্কায় কুমারখালী শহরে ১৪৪ ধারা জারিসহ ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

কুমারখালী উপজেলা শাখা জাসদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জয়দেব কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘আমাদের দলীয় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের কর্মসূচি নিয়ে একটু ভুল-বোঝাবুঝি হয়েছিল। আমরা জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ, চাঁদাবাজি, নিরীহ জনগণকে নির্যাতনসহ সমসাময়িক নানা ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ আহ্বান করেছিলাম। কিন্তু এর প্রতিবাদে শুক্রবার রাতে উপজেলা ছাত্রলীগ শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে এবং শনিবার দুপুরে পাল্টা কর্মসূচি ঘোষণা করে।’

অন্যদিকে, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাইসুল ইসলাম বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগ শনিবার দুপুর ৩টায় সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ও অর্জন তুলে ধরতে শোভাযাত্রা ও শহরের গড়াই কমপ্লেক্সে আলোচনাসভার আয়োজন করে। মহাজোট সরকারের শরিক হয়েও একই সময়ে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) নেতারা বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে ভিত্তিহীন ইস্যু নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ ডাকে। আসলে দলীয় ওই বিক্ষোভ-মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচির নেপথ্যে জাসদ ক্যাডারদের মহড়া দেওয়াই ছিল মূল উদ্দেশ্য।

জাসদ ও আওয়ামী লীগের সহযোগী ছাত্র সংগঠনের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি আয়োজন এবং তা বন্ধে প্রশাসনের ১৪৪ ধারা জারি করায় শহরে উভয় দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।


মন্তব্য