kalerkantho


রাষ্ট্রপতির আহ্বান

পরিবেশবান্ধব শস্য উৎপাদন পদ্ধতি উদ্ভাবন করুন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দেশের কৃষিবিদ এবং গবেষকদের তাদের গবেষণালব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে টেকসই ও দুর্যোগ সহিষ্ণু শস্য জাত উদ্ভাবনের আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনে বিশ্বব্যাপী জীববৈচিত্র্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়েছে। যদি পরিবেশ দূষণ বন্ধ করা না যায় তাহলে এই পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটবে। এ অবস্থা কাটিয়ে উঠতে কৃষিবিদ ও গবেষকদের উপায় খুঁজে বের করতে হবে।’

গতকাল বুধবার রাজধানীর ফার্মগেট কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) অডিটরিয়ামে কৃষি পদক প্রদান অনুষ্ঠানের ভাষণে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। কৃষি উৎপাদনে ঝুঁকি এবং ব্যয় বর্তমানে বৃদ্ধি পেয়েছে এ কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি পরিবেশবান্ধব কৃষি উৎপাদন পদ্ধতি এবং প্রযুক্তিভিত্তিক টেকসই পদ্ধতির প্রসার ও উদ্ভাবনে বিশেষ মনোযোগ দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আহ্বান জানান।

এ ছাড়া হাওর এলাকার জন্য স্বল্প সময়ে উৎপাদন সক্ষম ধানের জাত উদ্ভাবন এবং বিকল্প শস্য উৎপাদনের উপায় বের করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, ‘খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে খাদ্যশস্য উৎপাদন বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই। এ জন্য আমাদের স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি কার্যকর ও টেকসই পরিকল্পনা এবং কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে।’

রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের অপব্যবহার হ্রাস করার কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, এই রাসায়নিক সার ও কীটনাশকের অতি ব্যবহারে দেশের উর্বর কৃষিজমি ক্রমান্বয়ে উৎপাদন ক্ষমতা হারাচ্ছে। এ জন্য জৈবসার ও জৈব কীটনাশকের ব্যবহার বাড়াতে কৃষকদের উৎসাহিত করতে হবে।

নিজেকে কৃষক পরিবারের সন্তান উল্লেখ করে আবদুল হামিদ বলেন, যদি কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি পায়, কৃষকের আয় বৃদ্ধি পাবে, তাদের জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে। দেশের আর্থ-সামাজিক প্রবৃদ্ধি জোরদার হবে।

কৃষিতে অসামান্য অবদান রাখার জন্য চার ব্যক্তি ও একটি ইনস্টিটিউশনকে কেআইবি অ্যাওয়ার্ড ২০১৮ এবং পাঁচ ব্যক্তি ও একটি ইনস্টিটিউশনকে অ্যাওয়ার্ড ২০১৭ প্রদান করা হয়েছে। সূত্র : বাসস।


মন্তব্য