kalerkantho


ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের বর্ষবরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের বর্ষবরণ

শ্যামলীতে ‘ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে’ গতকাল বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন (মাঝে); বিশেষ অতিথি ছিলেন কালের কণ্ঠ’র নির্বাহী সম্পাদক ও কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল (ডান থেকে দ্বিতীয়)। ছবি : কালের কণ্ঠ

গরম জিলাপি, পিঠা-পায়েস, মুড়ি-মুড়কির ছড়াছড়ি চারদিকে। স্টলগুলোতেও গ্রামীণ আবহমান বাংলার রূপায়ণ। এ সবকিছু ঘিরে যাঁরা আছেন তাঁদের কেউ চিকিৎসক, কেউ চিকিৎসা শিক্ষার্থী। এই আয়োজনে তাঁদের তৈরি বাঙালি ঘরানার পোশাক ও খাবার ছিল। ছিল নাচ ও গানের পরিবেশনাও। গতকাল সোমবার বর্ষবরণের এমন আয়োজনে মুখরিত হয়ে ওঠে রাজধানীর শ্যামলীতে ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ প্রাঙ্গণ।

অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে তরুণ শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রধান অতিথি কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, বৈশাখী আহ্বান, আয়োজন, উৎসব—বাংলা ও বাঙালির ঐতিহ্য, মানবিক বোধ ও সংস্কৃতিচেতনা নির্মাণের বড় অর্জন, বড় শক্তি। এই অর্জন ও শক্তিকে ধারণ করে নতুন প্রজন্মকে সামনে এগিয়ে যেতে হবে নিজেকে, দেশকে ও সমাজকে গড়ে তুলতে।

একই অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি আরেক কথাসাহিত্যিক ও কালের কণ্ঠ’র নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামাল বলেন, ‘মাতৃভাষার জন্য রক্ত দেওয়া, জীবন দেওয়ার নজির কেবল আমাদেরই আছে, আর কোনো দেশ বা জাতির নেই। মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে আমরা অর্জন করেছি এই দেশমাতৃকা। তাই সবার আগে, সব সময় এই দেশকে মনেপ্রাণে ধারণ করতে হবে।’

মোস্তফা কামাল তরুণ প্রজন্মকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, নতুন প্রজন্মের তরুণরা যেভাবে বৈশাখী উৎসবে, বাঙালি চেতনায় নিজেদের জাগিয়ে তুলছে সেটা খুবই আনন্দের বিষয়। এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের মধ্যে।

ঢাকা  সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. এম এ হাই চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে আমাদের সময়ের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক সন্তোষ শর্মা, ওই কলেজের অধ্যাপক ডা. সোহরাব হোসেন সৌরভসহ অন্যরা বক্তব্য দেন।

 



মন্তব্য