kalerkantho


বিশ্ব হাইপারটেনশন দিবস আজ

দেশে ভয়ানক হয়ে উঠছে নিয়ন্ত্রণহীন উচ্চ রক্তচাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



হৃদরোগ আর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের নেপথ্যে বড় কারণ হিসেবে ধরা হয় হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপকে। এই রোগে আক্রান্তদের প্রতিটি মুহূর্ত ঘিরে রাখে বড় বিপদ। থাকে আকস্মিক স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি। গবেষণার তথ্য, বাংলাদেশে হাইপারটেনশনে আক্রান্তদের ৫২.৮ শতাংশের ক্ষেত্রেই রোগটি অনিয়ন্ত্রিত পর্যায়ে রয়েছে। এমন অবস্থার মধ্যেই সারা বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে হাইপারটেনশন ডে। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করছে বিভিন্ন সংস্থা ও সংগঠন।

জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার (অব.) ডা. আবদুল মালিক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এককথায় হাইপারটেনশন হচ্ছে সাইলেন্ট কিলার। দেশের ৫০ শতাংশ মানুষ জানে না তার হাইপারটেনশন আছে। এটা বড় বিপদের কথা। একজন তার রোগ সম্পর্কে না জানলে চিকিৎসার আশ্রয় নেবে কিভাবে?’

বাংলাদেশ কার্ডিয়াক সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কে এম মহিবুল্লাহ এক পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানান, ‘বাংলাদেশে ২৪.৫ শতাংশ মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভোগে। এদের ৫০ শতাংশকে আমরা নির্ণয় করতে পারি। আবার এই ৫০ শতাংশের ৪১ শতাংশ ওষুধ গ্রহণ করে। ওষুধ গ্রহণকারীদের মধ্যে ৩১ শতাংশ উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।’

আইসিডিডিআর,বির অসংক্রামক রোগ বিভাগের প্রধান ড. আলিয়া নাহিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক পর্যায়ের এক দল গবেষক মিলে আমরা কোবরা-বিপিএস নাম দিয়ে হাইপারটেনশন পরিস্থিতির ওপর বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কায় একটি গবেষণা করেছি। বাংলাদেশে টাঙ্গাইল ও মুন্সীগঞ্জে আমাদের কাজ হয়েছে ২০১৬ সালের এপ্রিল থেকে গত বছরের মার্চ পর্যন্ত। এতে আমরা চার হাজার ৪৪২ জনের মধ্যে ৮৯৫ জনকে পেয়েছি হাইপারটেনশনে আক্রান্ত অবস্থায়। তাদের মধ্যে ৫২.৮ শতাংশ রোগীর হাইপারটেনশন ওষুধ সেবনের পরও নিয়ন্ত্রণে রাখা যাচ্ছে না।’


মন্তব্য