kalerkantho


চট্টগ্রামে এক প্রকৌশলী ২৪ দিন ধরে নিখোঁজ

জঙ্গিবাদে জড়ানোর ধারণা পুলিশের

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রামে এক প্রকৌশলী ২৪ দিন ধরে নিখোঁজ

চট্টগ্রামে দীর্ঘ ২৪ দিন ধরে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ রয়েছেন এক প্রকৌশলী। ২৩ এপ্রিল ভোরে বাসা থেকে বের হওয়ার পর গতকাল বুধবার রাত ৯টা পর্যন্ত তিনি ফিরে আসেননি। কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের ধারণা, তিনি জঙ্গিবাদে জড়িয়েছেন। যদিও এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পুলিশের কাছে নেই।

নিখোঁজ সাদমান সৌমিকের (২৫) বাবার নাম আবদুল আউয়াল। গাজীপুর সদরের বাসিন্দা হলেও বাংলাদেশ রেলওয়েতে চাকরির সুবাদে চট্টগ্রাম নগরের ডবলমুরিং থানার পোস্তারপাড় এলাকায় বাস করেন।

আবদুল আউয়াল ২৩ এপ্রিল ডবলমুরিং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তাতে তিনি সাদমান সৌমিক নিখোঁজ হওয়ার তথ্য উল্লেখ করেন। সাধারণ ডায়েরির তথ্য অনুযায়ী, সাদমান সৌমিক আবদুল আউয়ালের বড় সন্তান। তিনি চট্টগ্রাম রেলওয়ে পাবলিক স্কুল, চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল ও চট্টগ্রাম কলেজে লেখাপড়া করেন। ঢাকার মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি) থেকে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে পাস করার পর চাকরিতে যোগ দেন। সর্বশেষ সাদমান প্রান্তিক মেরিন সার্ভিসেস লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছিলেন।

তথ্য মতে, ২২ এপ্রিল রাতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে খাবার খেয়ে যথারীতি ঘুমাতে যান সাদমান। পরদিন ভোরে ফজরের নামাজ পড়তে তিনি বাসা থেকে বেরিয়ে আর ফেরেননি। আবদুল আউয়াল সাদমানের কর্মস্থল প্রান্তিক মেরিন সার্ভিসের অফিসে গিয়ে জানতে পারেন যে আগের দিন ২২ এপ্রিল সাদমান অন্য একটি গ্রুপে যোগদানের কথা বলে প্রান্তিক মেরিন সার্ভিসেস থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। দিনভর খোঁজ না পেয়ে ওই দিনই ডবলমুরিং থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। আর এই সাধারণ ডায়েরির সূত্র ধরেই পুলিশ সাদমানের খোঁজ শুরু করে।

নগর পুলিশের ডবলমুরিং জোনের সহকারী কমিশনার আশিকুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রকৌশলী সাদমান নিখোঁজ হওয়ার পরপরই পুলিশ তাঁর সন্ধান শুরু করেছে। কিন্তু তিনি বাসা থেকে মোবাইল ফোন কিংবা ল্যাপটপ কিছুই নিয়ে যাননি। এ কারণে তাঁর হদিস পাওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। পরিবারের লোকজনও কোনো তথ্য দিতে পারেনি। সাদমানের মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপ জব্দ করে তল্লাশি চালিয়েও সন্দেহজনক কিছু পাওয়া যায়নি। বিষয়টি এখন সিটিটিসি ইউনিট দেখছে।

সাদমানের খোঁজ পাওয়া গেছে কি না—এমন বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের অতিরিক্ত উপকমিশনার আবদুল মান্নান এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, সাদমানের খোঁজ পেতে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। আর তাঁর বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য নিয়ে ধারণা হচ্ছে তিনি জঙ্গিবাদে যুক্ত হয়েছেন। অবশ্য এ বিষয়ে এখনো সুনির্দিষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি।

আবদুল আউয়াল বলেন, ‘সাদমান নিয়মিত নামাজ পড়ত। কিন্তু কখনো ওকে উগ্রবাদী মনে হয়নি। ধর্ম-কর্ম নিয়ে কখনো কারো সঙ্গে উগ্র আচরণও করেনি। তাই বুঝতে পারছি না সে স্বেচ্ছায় ঘর ছেড়েছে নাকি কোনো ধরনের সমস্যা হয়েছে।’


মন্তব্য