kalerkantho


মেয়র খোকন বললেন

ঢাকা দক্ষিণে ১০ বছরেও এত উন্নয়ন হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ মে, ২০১৮ ০০:০০



ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, ঢাকা দক্ষিণে তাঁর তিন বছরে যে উন্নয়ন হয়েছে, বিগত ১০ বছরেও তা হয়নি। ডিএসসিসির মেয়র ও কাউন্সিলরদের তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে গতকাল বুধবার ডিএসসিসির ব্যাংক ফ্লোরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নিজের তিন বছরের নানা সফলতার চিত্র তুলে ধরেন মেয়র।

সাঈদ খোকন বলেন, ‘আমি দায়িত্ব পালনকালে শহরে একটি ইতিবাচক উন্নয়ন শুরু হয়েছে, যা গত ১০ বছরেও হয়নি। তিন বছরে নগরীর ভাঙাচোরা বেহাল রাস্তা, ফুটপাত, নর্দমা সংস্কার ও মেরামত, এলইডি বাতি সংযোজন, পাবলিক টয়লেট, পার্ক, খেলার মাঠ, কবরস্থান, এসটিএস নির্মাণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, রাজস্ব উন্নয়ন, জলাবদ্ধতা ও যানজট নিরসনে পদক্ষেপ গ্রহণ, সর্বস্তরের নাগরিকের সচেতন, সম্পৃক্ত ও অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে ডিএসসিসির সার্বিক কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা এনেছি। সেই সঙ্গে নগরবাসীর আস্থা অর্জন করেছি। ঢাকার নাম গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে অন্তর্ভুক্তি হবে বলে আশা করছি। আমাদের নিরলস প্রচেষ্টা, আন্তরিকতা ও কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে যাচ্ছে। সময়ের ব্যবধানে নানা ধরনের পরিবর্তন দৃশ্যমান হয়েছে। আরো দৃশ্যমান হবে।’

শান্তিনগর এলাকার জলাবদ্ধতা প্রসঙ্গ টেনে মেয়র খোকন বলেন, একসময় শান্তিনগর এলাকায় হাঁটুসমান জলাবদ্ধতা হতো। এ অবস্থা নিরসনে আমরা শান্তিনগরে ড্রেনেজ নির্মাণে একটি বড় প্রকল্প গ্রহণ করি। এ প্রকল্পের কাজ সমাপ্ত হওয়ার পর এখন শান্তিনগর এলাকায় কোনো জলাবদ্ধতা হচ্ছে না। নাজিমুদ্দীন রোডের জলাবদ্ধতা দূর করার কাজটি প্রায় সমাপ্তির পথে। এ ছাড়া নব সংযুক্ত আট ইউনিয়নের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে ৭৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে শ্যামপুর, দনিয়া, মাতুয়াইল, সারুলিয়া এ চার ইউনিয়নের ১৫২.৩৪ কিমি রাস্তা, ৬.১০ কিমি ফুটপাত, ১৫৮.৫০ কিমি  নর্দমা, ১৪৩.৪৭ কিমি রাস্তায় এলইডি লাইট, সাত হাজার ৬৩টি বৃক্ষরোপণসহ নানা অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। ইতিমধ্যে প্রকল্পের কাজ ৬০ ভাগ সম্পন্ন হয়েছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই বাকি কাজ সমাপ্ত হবে বলে আশা করছি। মান্ডা, ডেমরা, নাসিরাবাদ ও দক্ষিণগাঁওয়ে চারটি ইউনিয়নের জন্য ৪৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬৫.৭২ কিমি রাস্তা, ৪৮ কিমি নর্দমা, ৭.৯৫ কিমি ফুটপাত, ১৭টি আরসিসি ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে।’

নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী নিজের দেওয়া প্রতিশ্রুতি কতটুটু বাস্তবায়ন করতে পেরেছেন উপস্থিত সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ‘অনেক কাজই করা হয়েছে। আবার অনেক কাজ দৃশ্যমান হওয়ার পথে। তবে সব ক্ষেত্রে সফল হয়েছি—এমনটি বলা যাবে না।’


মন্তব্য