kalerkantho


বকেয়া বেতন-ভাতার দাবি

নারায়ণগঞ্জ ও শ্রীপুরে কারখানা শ্রমিকদের বিক্ষোভ সড়ক অবরোধ, ভাঙচুর

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক প্রতিনিধি গাজীপুর   

১৩ জুন, ২০১৮ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের শ্রীপুরে বকেয়া বেতন-ভাতার দাবিতে পৃথক ঘটনায় তিনটি কারখানার শ্রমিকরা বিক্ষোভ প্রদর্শন, সড়ক অবরোধ ও যানবাহনে ভাঙচুর চালিয়েছে।গতকাল মঙ্গলবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত শহরের চাষাঢ়ায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে রিতীকা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেডের শ্রমিকরা বিক্ষোভ প্রদর্শন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে। কারখানাটির শ্রমিকরা অভিযোগ করে, তিন মাস ধরে বেতন না পাওয়ায় চরম অর্থকষ্টে আছে তারা। বাড়ির মালিকরা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, ঈদের আগে ভাড়ার টাকা না দিলে ঘর থেকে বের করে দেবে।

শ্রমিক আছিয়া বেগম বলেন, ‘ঈদের আর মাত্র তিন দিন বাকি। এখনো বেতন দেয় নাই। ছেলে-মেয়েকে ঈদের পোশাকও কিনে দিতে পারি নাই। এদিকে বাসাভাড়া, দোকান খরচ, গ্যাস ও বিদ্যুৎ বিল সবই এখনো বাকি। ঈদের সময় পরিশোধ করে দেব বলে রেখেছি। কিন্তু এখনো বেতনই পাই নাই। ঈদের আগে বকেয়া পরিশোধ না করলে ঘর থেকে বের করে দিবে। আর না খেয়ে থাকতে হবে।’

শহরের টানবাজার এলাকার রিতীকা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেডের শ্রমিকদের অভিযোগ, তাদের মার্চ থেকে মে পর্যন্ত টানা তিন মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। গার্মেন্টটিতে মোট শ্রমিক ৯০ জন। সর্বনিম্ন তিন হাজার থেকে সর্বোচ্চ আট হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন অঙ্কে শ্রমিকদের এক মাসের বেতন।

বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচিতে রিতীকা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেডের ইনচার্জ আনিছুর জামানের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক হনুফা বেগম, মর্জিনা আক্তার, রিপা আক্তার, রোমা আক্তার, আছিয়া বেগম, ওমর ফারুক, ইউসুফ মিয়া, জুয়েল রানা প্রমুখ।

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ জেলা উপ-মহাপরিদর্শক ইকবাল আহমেদ বলেন, ‘রিতীকা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেডের মালিক পলাতক রয়েছেন। পর পর তিনবার তারিখ দিয়েও শ্রমিকদের বেতন দেননি। তাই তাঁকে গ্রেপ্তারের জন্য এরই মধ্যে শিল্প পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আমরা ঈদের পর মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। আর শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছি যাতে কারখানার মেশিন ও আসবাবপত্র বিক্রি করে শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করা হয়।’

এদিকে গাজীপুরের শ্রীপুরে বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি জানিয়ে দুটি কারখানার শ্রমিকরা আলাদা এলাকায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক প্রায় এক ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। ওই সময় বিক্ষোভকালে শ্রমিকরা কয়েকটি যানবাহনে ভাঙচুর চালিয়েছে। গতকাল সকালে উপজেলার বেড়াইদের চালার ওয়েস্টারিয়া টেক্সটাইল ও প্যারাডাইস ইলেকট্রনিকস কারখানার বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা ওই কর্মসূচি পালন করে।

ওই সময় মহাসড়কে দুই পাশে প্রায় আট কিলোমিটারজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।পরে থানা, শিল্প ও মহাসড়ক পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে শ্রমিকদের সরিয়ে দিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে শ্রমিকরা অভিযোগ করেছে, ওই সময় পুলিশ তাদের লাঠিপেটা করেছে।

প্যারাডাইস ইলেকট্রনিকস কারখানার শ্রমিক খোরশেদ আলম ও রেজাউল করিম জানান, গত দুই মাসের ওভারটাইমসহ মে মাসের বেতন বকেয়া তাঁদের। গত ১০ জুন ওভারটাইমসহ বেতন পরিশোধের কথা ছিল। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ তা পরিশোধ না করে টালবাহানা শুরু করে। গত সোমবারও প্রতিশ্রুতি দিয়ে কারখানা কর্তৃপক্ষ তাদের পাওনা পরিশোধ করেনি।

এদিকে বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি জানিয়ে উপজেলার বেড়াইদের চালা এলাকার ওয়েস্টারিয়া টেক্সটাইল কারখানার শ্রমিকরা সকাল পৌনে ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। ওই সময় তারা কয়েকটি যানবাহনে ভাঙচুর চালিয়েছে।

ওই কারখানার শ্রমিক রুবেল, হাসান ও সোহেল জানান, গত এপ্রিল ও মে মাসের বেতন বকেয়া তাঁদের। অনেকবার প্রতিশ্রুতি দিয়েও কারখানা কর্তৃপক্ষ তাঁদের বেতন পরিশোধ করেনি। ঈদের আগে তাঁরা সব বকেয়া পরিশোধের দাবি জানালেও কর্তৃপক্ষ গা করেনি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিক্ষোভ চলাকালে শ্রমিকরা একটি যাত্রীবাহী বাসসহ কয়েকটি যানবাহনে ভাঙচুর চালিয়েছে। তবে এতে কেউ আহত হয়নি।


মন্তব্য