kalerkantho


উৎসবমুখরতায় ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ জুন, ২০১৮ ০০:০০



উৎসবমুখরতায় ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপিত

ছবি: কালের কণ্ঠ

উৎসবমুখর পরিবেশে সারা দেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপিত হয়েছে। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা ঈদগাহ ও মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন। বৈরী আবহাওয়ার কারণে ঈদের দিন সকালে দেশের কোথাও কোথাও উৎসব-আনন্দে সামান্য ছন্দপতন ঘটলেও সার্বিকভাবে পরিবেশ-প্রকৃতি ছিল যথেষ্টই অনুকূল।

রাজধানীতে ঈদের প্রধান জামাত যথারীতি অনুষ্ঠিত হয় গত শনিবার সকাল সাড়ে ৮টায় জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, সংসদ সদস্য, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র, রাজনৈতিক নেতা, সরকারি ও সামরিক বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বিভিন্ন মুসলিম দেশের কূটনীতিকরা এ জামাতে শরিক হন।

নগরীতে দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় বায়তুল মোকাররমে সকাল ৭টায়। এ ছাড়া সকাল ৮টা, ৯টা, ১০টা ও পৌনে ১১টায় বায়তুল মোকাররমে আরো চারটি ঈদ-জামাত হয়েছে। এ ছাড়া নগরীতে মোট ৪০৯টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হয় ঈদুল ফিতরের জামাত। জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি পার্টির সেক্রেটারি নূর-ই-আলম চৌধুরী এমপি, মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা, হুইপরা, জাতীয় সংসদের স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সংসদ সদস্যরা, জাতীয় সংসদের সিনিয়র সচিব ড. মো. আবদুর রব হাওলাদার, জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা ও এলাকার জনগণ এই জামাতে শরিক হয়। নামাজ শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ, সুখ-শান্তি, সমৃদ্ধি ও জাতীয় অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। পরে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী মুসল্লিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

এদিকে ঢাকা দক্ষিণ ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে মহানগরীতে মোট ৪০৯টি ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয়। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র কার্যালয়ের কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় জানান, ডিএসসিসির ৫৭টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতে চারটি করে এবং জাতীয় ঈদগাহ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মাঠসহ মোট ২৩০টি স্থানে ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয়। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) জনসংযোগ কর্মকর্তা এস এম মামুন জানান, ডিএনসিসির ৩৬টি ওয়ার্ডে মোট ১৭৯টি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবছরের মতো এবারও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় দেশের সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ১০টায়। এখানে ১৯১তম ঈদুল ফিতরের জামাতে ইমামতি করেন ইসলাহুল মুসলিমিন পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

ধর্মীয় বৃহত্তম এই উৎসব উপলক্ষে শনিবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথকভাবে বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর প্রতিনিধি এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিরাসহ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

ঈদ উপলক্ষে শনিবার সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এ উপলক্ষে বনানী-ঢাকা গেট থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত প্রধান সড়ক এবং সড়ক দ্বীপগুলোতে লাগানো হয় জাতীয় পতাকা এবং বাংলা ও আরবিতে ‘ঈদ মোবারক’ খচিত ব্যানার।



মন্তব্য