kalerkantho


আইন-শৃঙ্খলা বৈঠকে সিইসি

তিন সিটির নির্বাচন যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয়

বিশেষ প্রতিনিধি   

১৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



জাতীয়  সংসদ  নির্বাচনের আগে রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সে বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্টদের সতর্ক করেছে নির্বাচন কমিশন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা এ বিষয়ে বলেছেন, ‘এখন থেকে দুই মাসের মধ্যে আমরা জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রক্রিয়ার দিকে যাব। সুতরাং সেই প্রস্তুতির পূর্বকালে এই তিন সিটি নির্বাচন আমাদের নির্বাচন কমিশন, মাঠপর্যায়ে যারা এই নির্বাচন পরিচালনা করবেন এবং এই নির্বাচনে সহায়তাকারী সব কর্মকর্তাসহ সবার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

এ ছাড়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি আসবে বলে আবারও আশা প্রকাশ করেন তিনি। 

গতকাল বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে তিন সিটির নির্বাচন নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে সিইসি এসব কথা জানান। সিইসির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, কবিতা খানম ও নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া পুলিশ ও র‌্যাবের মহাপরিদর্শক, তিন বিভাগীয় কমিশনার, সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসাররাসহ অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকটি শুরু হয় সকাল ১১টায়।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি আরো বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে আসবে বলে আশা করি। সবাইকে নিয়েই নির্বাচন হবে।’ নির্বাচনে সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরি রয়েছে, এই সুযোগ থাকবে এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সিইসি বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের বন্দির বিষয়টি আইন-আদালতের বিষয়। ওই ব্যাপারে আমাদের কিছু জানা নেই। আমাদের কিছু করণীয়ও এক্ষেত্রে নেই।’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকের আলোচনা ও নির্দেশনা সম্পর্কে নুরুল হুদা বলেন, ‘নির্বাচনগুলো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য দিকনির্দেশনা দিয়েছি। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিদের কথা শুনেছি। কিভাবে সমন্বয়ের মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালনা করা যায়, তার পরামর্শ দিয়েছি। আমরা আশা করি তিনটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।’

খুলনা ও গাজীপুর সিটি নির্বাচনের অভিজ্ঞতার আলোকে এ তিন সিটির নির্বাচনে বাড়তি কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে বাড়তি কোনো ব্যবস্থার দরকার পড়ে না। কারণ, নতুন কোনো আইন তৈরি হয়নি যে বাড়তি ব্যবস্থার দরকার হবে। নির্বাচন আইন ও বিধিমালা অনুসারে পরিচালিত হয়। এখানেও সেটা হবে।’

গোয়েন্দা প্রতিবেদন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিদের বক্তব্য অনুসারে আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠেয় তিন সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের পরিবেশ সঠিক আছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ নির্বাচনে কোনো ঝুঁকি বা আশঙ্কার বিষয় নেই। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কিভাবে নির্বাচন সুষ্ঠু করা যায় সে বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’ 

সিইসি  জানান, জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে এই নির্বাচন যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সে বিষয়ে সতর্ক থেকে  সুষ্ঠুভাবে  নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য যা যা করণীয় তা করা হবে বলেও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে।



মন্তব্য