kalerkantho


মনোজ্ঞ আয়োজনে রবীন্দ্র নজরুল স্মরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ জুলাই, ২০১৮ ০০:০০



মনোজ্ঞ আয়োজনে রবীন্দ্র নজরুল স্মরণ

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের দুই দিকপাল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও কাজী নজরুল ইসলাম স্মরণে সাংস্কৃতিক সংগঠন বহ্নিশিখা এক ব্যতিক্রমী আয়োজন করেছিল। গতকাল বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ আয়োজন সাজানো হয় সংগীত, নৃত্য, আবৃত্তি ও কথামালায়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। বক্তব্য দেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক হাসান আরিফ। সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও বহ্নিশিখার সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ।

আনিসুজ্জামান বলেন, রবীন্দ্র ও নজরুলের রচনা প্রাচুর্যতা তুলনীয় নয়। বরং তাঁদের রচনার বৈচিত্র্য তুলনা করা যায়। তাঁরা নানা বিষয়ে লিখেছেন। সবার ওপরে তাঁরা মানুষকে প্রাধান্য দিয়েছেন, মানুষের জয়গান গেয়েছেন। সমগ্র মানুষ জাতিকে এক করে দেখেছেন।

বহ্নিশিখার শিল্পীরা অনুষ্ঠানের শুরুতেই কণ্ঠে তুলে নেন নজরুলের ‘গগনে সঘন চমকিছে দামিনী’। তাঁরা গেয়ে শোনান রবীন্দ্রনাথের ‘বিশ্বসাথে যোগে যেথায় বিহারো’। এর পর ছিল বহ্নিশিখার শিল্পীদের দলীয় নৃত্য। একক কণ্ঠে গান পরিবেশন করেন শিমুল সাহা, আসিফ ইকবাল সৌরভ, আবিদা রহমান সেতু ও অমিতেষ দাশ অমি। অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রনাথের ‘পরিচয়’ কবিতাটি আবৃত্তি করেন মাহফুজা আক্তার মীরা এবং তাসরুম জাহান জুঁই পাঠ করেন নজরুলের সাম্যবাদী কবিতাটি। সবশেষে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলের গান ও কবিতা নিয়ে একটি কোরিওগ্রাফি পরিবেশন করেন বহ্নিশিখার সংগীত ও নৃত্যশিল্পীরা।

বাংলাদেশ-নেপাল বন্ধুত্ব : নেপাল দূতাবাস গতকাল সন্ধ্যায় জমজমাট সাংস্কৃতিক আয়োজন করেছিল শিল্পকলা একাডেমিতে। দুই দেশের ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক পরিবেশনা একযোগে চলে একাডেমির জাতীয় সংগীত, আবৃত্তি ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে। মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বালন করে আয়োজনের উদ্বোধন করেন নেপালের রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক ড. চুপ লাল ভূষাল ও ডেপুটি চিফ অব মিশন ধন বাহাদুর অলি।

সাংস্কৃতিক পরিবেশনার শুরুতেই নেপালের ঐতিহ্যবাহী কুমারী নৃত্য নিয়ে মঞ্চে আসেন সুশীলা থাপা। নৃত্য পরিবেশন করেন সুমন সাগর জং। কউরা নৃত্য, টপ্পা নৃত্য, ভোজপুরি নৃত্য ও জাউর নৃত্যের ছন্দে শিল্পীরা তুলে আনেন বিভিন্ন আচার ও ঐতিহ্য। মাদল, বাঁশি ও মুজুরার পাহাড়ি সুরে মন জয় করে মিলনায়তনভর্তি দর্শকের। বাংলাদেশি শিল্পীদের মধ্যে অংশ নেন তনুশ্রী মাঞ্জি গোর্কা ও আমিনুল আশরাফ। সব শেষে ছিল লোকজ নৃত্য। শিল্পীরা ‘ঘাটে লাগাইয়া ডিঙ্গা’ ও ‘বকুল ফুল’ গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন।

মঞ্চে ‘রাজরক্ত’ : ঢাকার মঞ্চে এলো আরো একটি নতুন নাটক ‘রাজরক্ত’। গতকাল সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে নাটকটি মঞ্চে এনেছে প্রাচ্যনাট স্কুল অব অ্যাক্টিং অ্যান্ড ডিজাইন। প্রতিষ্ঠানটির ৩৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা তাঁদের শিক্ষা সমাপনী প্রযোজনা হিসেবে নাটকটিতে অভিনয় করেছেন। নাট্যকার মোহিত চট্টোপাধ্যায় রচিত নাটকটি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রদ্যুৎ কুমার ঘোষ।



মন্তব্য