kalerkantho


ফেসবুক থেকে পাওয়া

শুধু স্মৃতিতে রয়ে যাবে

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দুই বছর আগের কথা। আষাঢ়-শ্রাবণ মাস এলো। আমার জীবনের সেরা সময় ছিল এটি। বৃষ্টি নামত প্রায় প্রতিদিনই। স্কুলে যাওয়া হয়নি এই ঘন বৃষ্টির কারণে। কিন্তু এই বৃষ্টি আমাকে অন্য একটা কাজে জুড়ে দিত। শত আদেশ-বারণ ভুলে বৃষ্টির মধ্যেই এক দৌড়ে পৌঁছে যেতাম মাঠে। সেখানে বন্ধুদের সঙ্গে ফুটবল খেলতাম। অনবরত বৃষ্টিতে এক অন্যরকম আবেশ  তৈরি হতো খেলার মাঠে, কাদায় মাখামাখিও হয়েছি অনেকবার। এমনকি আমরা কর্দমাক্ত মাঠে ক্রিকেটও খেলেছি। আমার জ্বরও এসেছিল, তবু প্রিয় বর্ষার অদ্ভুত টানে জ্বর নিয়েই খেলতে গিয়েছি মাঠে। বিকেলগুলোও কম রোমাঞ্চকর ছিল না। দুপুর না পেরোতেই ভাবতে থাকতাম, আহ, কখন যে ৫টা বাজবে! বিকেল ৫টা না বাজতেই সবাই কোনো বন্ধু কিংবা আমাদের বাসায় একত্র হতাম। শুরু হতো আড্ডা, গল্প। আগে বকাঝকা করলেও বড়রা ঠিকই এসে যোগ দিতেন আমাদের সঙ্গে। আমি গিটার বাজাতাম, গানও হতো। বৃষ্টিরা তাল দিত আমাদের সুরে। ঘর থেকে বাইরে তাকালে দেখতাম, বৃষ্টির ধারা ক্রমাগত চলছেই। একে অপরের সঙ্গে হাসি-ঠাট্টা করেছি কতই না! সত্যিই কী অপূর্ব ছিল সে মুহূর্তগুলো। কিন্তু দুই রবছরের ব্যবধানেই সেই মুহূর্তগুলো একেবারেই হারিয়ে গেছে। এবারও বর্ষা এলো, চলে গেল; কিন্তু দুই বছর আগের সেই মুহূর্তগুলো আর ফিরে এলো না। সব যেন পাল্টে গেছে। দিন দিন সবার পড়াশোনার চাপ বাড়ছে। জানি, আর কখনো গত বছরের মতো মুহূর্ত তৈরি হবে না। শুধু স্মৃতিতে রয়ে যাবে।

 

রিদওয়ান আল হাসান


মন্তব্য