kalerkantho


আখাউড়ায় জলাশয় ভরাট

পানিবন্দি অর্ধশত দরিদ্র পরিবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া রেলওয়ে জংশন এলাকায় বালু দিয়ে জলাশয় ভরাট করা হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অর্ধশত দরিদ্র পরিবার।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা এলাকা পরিদর্শন করে পানি নিষ্কাশন ও এর সঙ্গে জড়িতদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আখাউড়া-আগরতলা এবং আখাউড়া-লাকসাম ডাবল লাইন নির্মাণে কাজ চলছে আখাউড়া এলাকায়। নির্মাণকাজের সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে বালু সরবরাহ করছে স্থানীয় একাধিক পক্ষ। কয়েক দিন ধরেই আখাউড়া রেলওয়ে জংশনের দক্ষিণ-পশ্চিম এলাকায় বালু ফেলা হচ্ছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সেখানকার একটি জলাশয়ে বালু ফেলতে গেলে স্থানীয় বাসিন্দারা তাতে বাধা দেয়। তাই রাত ১টার দিকে তারা জলাশয়ে বালু ফেলে। আর এতেই আশপাশের ঘরগুলোতে পানি উঠে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত কুলসুম বেগম ও বানু বেগম জানান, ভোরের দিকে তাঁদের ঘরে পানি উঠতে শুরু করে। এতে তাঁদের দৈনন্দিন কাজে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

আখাউড়া পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মানিক মিয়া বলেন, ‘খবর পেয়ে আমি বালু ফেলার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের কাজ বন্ধ রাখতে বলেছি। কিন্তু এরই মধ্যে পানি উঠে পড়ায় লোকজন অনেক কষ্ট করছেন। ’

বালু ফেলার কাজে জড়িত আখাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শরীফুল ইসলাম বলেন, ‘বালু ফেলা জায়গাটি রেলওয়ের। এখানে যারা থাকে, তাদের অনেককে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণ দিলেও তারা সরে যায়নি। তবে বালু ফেলার পর যে ঘরে এভাবে পানি ঢুকে যাবে তা আমরা বুঝতে পারিনি। পানি সরানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ’ জলাশয়ে বালু রাখা হলেও তা সরিয়ে উন্নয়ন কাজের জায়গায় নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শামছুজ্জামান বলেন, ‘ঘরে পানি ওঠায় লোকজন কষ্ট করছে। এটা খুবই অন্যায় হয়েছে। বালু ফেলার সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে তাদের ইতিমধ্যেই বলে দেওয়া হয়েছে। ’


মন্তব্য