kalerkantho


রাজবাড়ী হবিগঞ্জে গুলি ও পিটুনি

ছাত্রলীগ নেতাসহ আহত ৭

রাজবাড়ী ও হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের অন্তরমোড় এলাকায় চরমপন্থীদের গুলিতে তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন বরাট ইউনিয়নের সাভার গ্রামের ফজের ব্যাপারীর ছেলে রিকশা ভ্যানচালক ইসলাম ব্যাপারী (৪০) এবং গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের চর বরাট গ্রামের মৃত ইয়াদ আলী বিশ্বাসের ছেলে কৃষক করম আলী বিশ্বাস (৫৫) ও একই গ্রামের গেদু ব্যাপারীর ছেলে আলতাফ ব্যাপারী (৪০)। আহত করম আলী বিশ্বাসকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতাল এবং ইসলাম ব্যাপারীকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আলতাফ ব্যাপারী গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

আহত কৃষক করম আলী বিশ্বাস জানান, বৃহস্পতিবার অন্তরমোড় বাজারের দুলালের চায়ের দোকানের সামনে আলতাফ ব্যাপারীর সঙ্গে অস্ত্রধারী দুই ব্যক্তির বাগবিতণ্ডা দেখে লোকজন এগিয়ে যায়। একপর্যায়ে অস্ত্রধারীরা আলতাফ ব্যাপারীকে লক্ষ্য করে গুলি করে। লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে তাদের একটি গুলি কৃষক করম আলীর বাহুতে, একটি আলতাফ ব্যাপারীর কানে এবং একটি গুলি রিকশা ভ্যানচালক ইসমাইল বেপারীর বাঁ চোখে বিদ্ধ হয়। গুলির শব্দে স্থানীয়রা ছোটাছুটি শুরু করে। পরে তারা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা জানায়, চরমপন্থীরা চাঁদা না পেলেই এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে থাকে। রাজবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) কামাল হোসেন ভুইয়া জানান, এরই মধ্যেই দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান শুরু হয়েছে।

এদিকে পারিবারিক বিরোধের জেরে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সোহান আহমদ মুছাসহ তাঁর পরিবারের চার সদস্যকে কুপিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষের লোকরা। বৃহস্পতিবার দুুপুরে শহরতলির সালামতপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, নবীগঞ্জ পৌরসভার সালামতপুর গ্রামের খুর্শেদ মিয়ার ছেলে ও উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সোহান আহমদ মুছা ও তাঁর ছোট ভাই মনসুর আহমদ এক মাস আগে তাঁদের আপন চাচা নিজাম উদ্দিন, হারুন মিয়া, দুলাল মিয়াসহ পাঁচ ফুফুকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। সেই থেকে মুছার ভয়ে সবাই পালিয়ে বেড়ায়। বৃহস্পতিবার মুছা ও তাঁর ভাই তাঁদের চাচাদের একটি মত্স্য খামার থেকে মাছ ধরতে গেলে মুছার তিন চাচা ও ফুফুরা মিলে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে চারজন আহত হয়।

ছাত্রদের মধ্যে সংঘর্ষ আহত সাত

হবিগঞ্জ শহরের শায়েস্তানগরে জে কে অ্যান্ড এইচ কে হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজে দুই দল ছাত্রের মধ্যে সংঘর্ষে সাতজন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত পাঁচজনকে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।


মন্তব্য