kalerkantho


লক্ষ্মীপুরে ধান লুট

চেয়ারম্যানসহ ২২ জনের নামে মামলা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



লক্ষ্মীপুরে চাঁদা না পেয়ে কৃষকের ২৪৪ মন ধান লুটে নিয়ে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। এতে সদর উপজেলার চররমণীমোহন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ছৈয়ালসহ সাতজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ১৫ জনকে আসামি করা হয়। গত বৃহস্পতিবার কৃষক কায়কোবাদ চুন্নু বাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ২-এ মামলাটি করেন।

বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) শাখার ওসিকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। এ সময় ১৪ মার্চের মধ্যে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়।

মামলার এজাহারে বলা হয়, চাঁদপুরের হাইমচরের কায়কোবাদ চুন্নু তাঁর লক্ষ্মীপুরের চররমণীমোহন ইউনিয়নের চর আলী হাসান গ্রামের পৈতৃক জমিটি চাষাবাদের জন্য স্থানীয় মোহাম্মদ শামছুল হককে দায়িত্ব দেন। ওই জমিতে ধান চাষ করা হয়। গত কয়েক বছর ধরে ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. স্বপন ও সেলিম চৌধুরী সহযোগীদের নিয়ে চাঁদা হিসেবে জোর করে জমির ৮০ শতাংশ ধান কেটে নিয়ে যেত। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানালে সমস্যা সমাধান করে দেওয়ার কথা বলে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এ প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তিনি প্রতিপক্ষকে দিয়ে জমিটি দখলের হুমকি দিলে জেলা সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আসামিরা গত ১৬ ও ১৭ ডিসেম্বর জোর করে জমির পাকা ধান কেটে নিয়ে যায়। পরে চারটি বাড়িতে স্তূপ করে রাখা ১৬৩ বস্তায় মোট ২৪৪ মন ধান বিক্রির পর টাকা ভাগ-বাটোয়ারা করে নেয় আসামিরা।

অভিযোগের বিষয়ে চররমণীমোহনের ইউপি চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ছৈয়াল বলেন, ‘এটি একটি মিথ্যা মামলা। একটি পক্ষ পরিকল্পিতভাবে আমার বিরুদ্ধে এটি করিয়েছে।’


মন্তব্য