kalerkantho


কুষ্টিয়ায় জোড়া খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



কুষ্টিয়ায় জোড়া খুন

কলেজ ছাত্র সোহান

কুষ্টিয়া শহরের উপজেলা রোডে গতকাল রবিবার সকালে কলেজছাত্রসহ দুই যুবক খুন হয়েছেন। নিহতরা হচ্ছেন আমলা সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র সোহান (২০) এবং বিআরবি কেবলসের কর্মী শামীম (২২)। উপজেলা রোডের ডাবলু হোসেনের ছেলে শামীম। তিনি মাসখানেক আগে বিয়ে করেছেন। অন্যদিকে তোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে সোহান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকালে বাড়ির পাশে খোলা জায়গায় বসেছিলেন তাঁরা। শীত নিবারণ করতে আগুন জ্বালানোর জন্য শামীমের বাড়ির পেছন থেকে পরিত্যক্ত কাঠের খড়ি নিয়ে যাচ্ছিলেন সোহান। এ সময় শামীমের মা টের পেয়ে বাধা দেন। সোহানের সঙ্গে তাঁর কথা-কাটাকাটি হয়। পরে শামীম বাধা দিলে সোহান ফিরে যান। সকাল ১১টার দিকে শামীম বাড়ি থেকে বের হলে সোহান ও তার বন্ধু আসিফ ছুরি নিয়ে আক্রমণ করে। এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। একপর্যায়ে সোহান ছুরিকাহত হয়। আসিফ পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আহত দুজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, হামলাকারী আসিফ স্থানীয় আল্লেকের ছেলে। সে এবং সোহান ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তাদের দুজন একাধিক মারামারির মামলার আসামি। শামীমকে মারতে এসে ধস্তাধস্তির সময় সোহানকেও ছুরিকাঘাত করে আসিফ।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা তাপস কুমার পাল জানান, ছুরিকাঘাতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাঁদের মৃত্যু হয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার পরিদর্শক শেখ ওবাইদুল্লাহ জানান, শীতে আগুন জ্বালানোকে কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের দুই পরিবারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

কুষ্টিয়ার সহকারী সিনিয়র পুলিশ সুপার নূর-ই-আলম সিদ্দিকী জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। স্থানীয়দের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পুলিশ প্রকৃত ঘটনা অনুসন্ধান ও ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছে।


মন্তব্য