kalerkantho


ঝালকাঠিতে খরচ দেন না স্বামী

স্বাবলম্বী হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



স্বাবলম্বী হওয়ায় স্ত্রীকে নির্যাতন

শিউলী বেগম

দুটি শিশুসন্তান নিয়ে সংসার। স্বামী সংসারের কোনো খরচ দেন না। স্ত্রী একটি চায়ের দোকান দিয়েছেন। এটা সহ্য করতে না পেরে তাঁকে নির্যাতন করেছেন স্বামী।

সর্বশেষ নির্যাতন করেছেন গত বুধবার রাত ১০টার দিকে। ঝালকাঠি শহরের কুতুবনগর এলাকার এ ঘটনা। গৃহবধূ শিউলি বেগম (২৮) পালিয়ে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় আট বছর আগে সদর উপজেলার বাউতিতা গ্রামের সৈজদ্দিন ফরাজীর ছেলে রাজমিস্ত্রি রিপন ফরাজীর সঙ্গে নলছিটি উপজেলার বারইকরণ গ্রামের খালেক শরীফের মেয়ে শিউলির বিয়ে হয়। এক বছর ধরে স্বামী বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে স্ত্রীকে নির্যাতন করে আসছেন। মাঝেমধ্যে ঘরে বাজারও বন্ধ করে দেন। এ নিয়ে পারিবারিক কলহ চলছিল। গৃহবধূ সংসার চালানোর জন্য এলজিইডি কার্যালয়ের সামনে একটি চায়ের দোকান দেন। এখান থেকে যা আয় হয়, তা দিয়ে সংসার চালান। বুধবার রাতে স্বামী ঘরে এসে কিছু বুঝে ওঠার আগে সন্তানদের সামনে গৃহবধূকে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পেটান। মারধরের কারণ জানতে চাইলে অনৈতিক অভিযোগ তুলে গরম পানি নিক্ষেপ করেন গৃহবধূর মুখমণ্ডলে। এ সময় চামচ গরম করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছেঁকা দেন। তাঁকে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে ঘরে আটকে রেখে তালাবদ্ধ করে চলে যান। গৃহবধূ কৌশলে দরজা খুলে পালিয়ে রাতেই হাসপাতালে ভর্তি হন। খবর পেয়ে ঝালকাঠি থানার পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে গৃহবধূর অভিযোগ শুনে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেয়। স্বামী ঘটনার পর থেকে গা-ঢাকা দিয়েছেন।

শিউলি বেগম বলেন, ‘বিয়ার পর হইতেই মারে। ওর নির্যাতন আর সহ্য করতে পারি না। আমারে বাজার দেওয়া বন্ধ কইর‌্যা দেছে, যাতে আমি ও আমার একটি ছেলে ও একটি মেয়ে না খাইয়্যা মরি। বাধ্য হইয়্যা আমি একটা চায়ের দোহান (দোকান) দিছি। আমারে সন্দেহ করে, আমি নাকি পরকিয়া করি। মিথ্যা নানা অভিযোগ দিয়া আমারে মারধর করে। বুধবার রাইতেও বাসায় আইয়্যা বেহুদা (অহেতুক) আমারে মারধর করে। চুলাও উপরে থাহা গরম পানি নাকমুখে মারছে। চামুচ গরম কইর‌্যা হাতে ও শরীরের বিভিন্ন যায়গায় ছ্যাঁকা দেছে। আমি ওই পাষণ্ডের লগে থাকতে চাই না। ওর বিচার চাই।’

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা মু. হাফিজুর রহমান বলেন, গৃহবধূর চোখে আঘাত লেগেছে। তাঁর শরীরে চামচের ছেঁকা ও গরম পানি নিক্ষেপের ক্ষত রয়েছে। তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঝালকাঠি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আশিকুল ইসলাম বলেন, ‘খবর পেয়ে আমি হাসপাতালে গিয়ে গৃহবধূর অভিযোগ শুনেছি। স্বামীকে আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় গৃহবধূ অভিযোগ দিলে মামলা নেওয়া হবে।’


মন্তব্য