kalerkantho


নেত্রকোনা শেরপুর কুড়িগ্রামে প্রহরীসহ তিনজনকে হত্যা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া মৌলভীবাজারে দুই লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নেত্রকোনার পূর্বধলায় বাজারের নৈশপ্রহরীকে হত্যা করেছে ‘ডাকাতরা’। কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ভাইয়ের হাতে খুন হয়েছেন ভাই। শেরপুরে বাদীপক্ষের হাতে খুন হয়েছেন বিবাদীপক্ষের একজন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নিখোঁজের পাঁচ দিন পর দিঘিতে মিলেছে শ্রমিকের লাশ। মৌলভীবাজারের নারীর মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিস্তারিত নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

নেত্রকোনা : পূর্বধলা উপজেলার দত্তকুনিয়া বাজারের নৈশপ্রহরী আবু মিয়াকে খুন করে কয়েকটি দোকান থেকে মালপত্রসহ লক্ষাধিক টাকা লুটে নিয়েছে ‘ডাকাতরা’। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল শনিবার সকালে আবু মিয়ার হাত-পা ও মুখ বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে। তিনি লাউয়াইর গ্রামের কাদির আকন্দের (মৃত) ছেলে। একাধিক সূত্রে জানা যায়, ছয় মাস আগে বাজারে ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও বাজার কমিটর লোকজন ডাকাতদলের সাবেক সদস্য আবু মিয়াকে নৈশপ্রহরী হিসেবে নিয়োগ দেন। গতকাল সকালে বাজারের ব্যবসায়ীরা দোকান খুলতে এসে দেখেন, শাটারের তালা ভাঙা ও মালপত্র নেই। একপর্যায়ে সাহাব উদ্দিন ও বারেকের দোকানের পেছনে কাদাপানিযুক্ত ক্ষেতে নৈশপ্রহরীর লাশ পড়ে থাকতে দেখে তারা। লাশের হাত-পা দড়ি ও মুখ গামছা দিয়ে বাঁধা ছিল। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। লাউয়াইরের শামীম আহাম্মেদ জানান, আবু মিয়া ডাকাতদলের সদস্য ছিল। বছরখানেক আগে সে ডাকাতি ছেড়ে দেয়। একেক দিন একেক দোকানের মালিক ও আবু মিয়া মিলে প্রতি রাতে বাজারে পাহারা দিতেন। গত শুক্রবার রাতে আবু মিয়া একাই পাহারা দিচ্ছিল। এ সুযোগে অন্য ডাকাতরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাকে হাত-পা বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে শামীমের ধারণা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : নিখোঁজের পাঁচ দিন পর দীঘিতে মিলেছে শ্রমিক রানা মিয়ার লাশ। গতকাল শনিবার সকালে পৌর এলাকার রহিমপুর (চণ্ডালখিল) এলাকার দীঘি থেকে লাশটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। রানা রহিমপুরের মাখন মিয়ার ছেলে। তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে পরিবারের অভিযোগ। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। চাচা ইউনুস মিয়া ও চাচাতো ভাই বিল্লাল মিয়া জানান, গত ১৫ জানুয়ারি রানাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় পূর্বপরিচিত সেলুনকর্মী জাহাঙ্গীর। এরপর থেকে রানার খোঁজ মিলছিল না। জাহাঙ্গীরকেও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তিন দিন আগে বিল্লালের কাছে ফোন করে রানা সম্পর্কে জানতে চায় জাহাঙ্গীর। সদর থানার ওসি মো. নবীর হোসেন জানান, লাশের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই। কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেরপুর : সদর উপজেলায় ‘কুদ্দুস হত্যা মামলা’র মীমাংসা বৈঠকে বাদীপক্ষের হাতে খুন হয়েছেন বিবাদীপক্ষের মিস্টার মিয়া। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার টাকিমারী গ্রামে। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল শনিবার সকালে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় মিস্টার মিয়ার মা হরবলা বেগম হত্যা মামলা করেছেন। সদর থানার ওসি মো. নজরুল ইসলাম জানান, আট বছর আগে টাকিমারীর কুদ্দুসকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় করা মামলার বাদী ও বিবাদীপক্ষ শুক্রবার সন্ধ্যায় মীমাংসা বৈঠকে বসে। একপর্যায়ে তারা বাগিবতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এ সময় বাদীপক্ষের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে মিস্টার মিয়ার মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করলে তিনি গুরুতর আহত হন। তাঁকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে।

মৌলভীবাজার : শহরের বেরীরচর এলাকায় বস্তা থেকে গতকাল শনিবার দুপুরে পলিথিনে মোড়ানো মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশটি শহরের সুলতানপুর এলাকার সেলিনা বেগমের বলে শনাক্ত করেছেন তাঁর ছেলে আলম। সেলিনা ফেরি করে কাপড়ের ব্যবসা করতেন। ময়নাতদন্তের জন্য তাঁর লাশ মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। পরিবার বা পুলিশ কেউই তাঁকে হত্যার কারণ জানাতে পারেনি। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন মৌলভীবাজার থানার ওসি সুহেল আহমদ।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের রাজারহাটে সালিস বৈঠকে ছোট ভাইয়ের হাতে খুন হয়েছেন বড় ভাই আব্দুর রাজ্জাক। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার পূর্বদেবোত্তর গ্রামে। অভিযুক্ত ছোট ভাই আব্দুর রব মাদকাসক্ত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পূর্বদেবোত্তরের রতন মণ্ডল জানান, শুক্রবার দুপুরে জমি নিয়ে চলা দীর্ঘদিনের বিরোধ মেটাতে রাজ্জাক ও রবদের বাড়িতে সালিস বৈঠক বসে। একপর্যায়ে রব তাঁর হাতে থাকা চুল কাটার কাঁচি দিয়ে বড় ভাই রাজ্জাকের চোখে আঘাত করেন। এতে রাজ্জাক মারাত্মক আহত হন। এতে উত্তেজিত হয়ে তাঁর সন্তানরা রবের ওপর চড়াও হলে তিনিও আহত হন। এ অবস্থায় দুই ভাইকে প্রথমে সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে রাজ্জাকের অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে রাতে তাঁর মৃত্যু হয়। গ্রামবাসীরা জানায়, রব মাদকাসক্ত। প্রায়ই বড় ভাইয়ের ঘরবাড়ি ভাঙচুর করতেন। এ ঘটনায় রাজ্জাক থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছিলেন। রাজারহাট থানার ওসি মো. মোখলেছুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।


মন্তব্য