kalerkantho


দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ

ছয় ঘাটের তিনটি বন্ধ ফেরি বিকল পাঁচ

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

১৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ফেরির সংকট কাটেনি। পাশাপাশি যাত্রীবাহী বাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কারগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করায় পণ্যবাহী ট্রাকগুলো উভয় ঘাটে দিনের পর দিন আটকে পড়ে থাকছে। গতকাল সোমবার দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরির টিকিট সিরিয়ালে আটকে পড়ে ঢাকাগামী বিভিন্ন পণ্যবোঝাই শত শত ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান। এতে ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দ ফিডমিল পর্যন্ত  ট্রাক জটের সৃষ্টি হয়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডাব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্র জানায়, ঘাট পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যস্ততম এ নৌপথে কমপক্ষে ১২টি রো রো (বড়) ফেরি সার্বক্ষণিক সচল থাকা প্রয়োজন। কিন্তু বর্তমানে বহরে থাকা ১০টি রো রো (বড়) ফেরির মধ্যে পাঁচটি বিকল হয়ে আছে। এর মধ্যে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান, বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন ও কেরামত আলী নামের তিনটি ফেরি নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে পাঠানো হয়েছে। বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান ও আমানত শাহ নামের দুটি বড় ফেরির মেরামতকাজ চলছে পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে। পাশাপাশি দুটি কে-টাইপ, ছয়টি ইউটিলিটি ও একটি মিডিয়াম ফেরি থাকলেও সেগুলোর ধারণক্ষমতা অনেক কম। তবে ফেরিগুলো অনেক পুরনো হওয়ায় বিভিন্ন যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে সেগুলোও ঘন ঘন বিকল হয়ে যায়। তাই এ নৌপথে ফেরি সংকট কাটছেই না। এদিকে ফেরি সংকটের পাশাপাশি ঘাট সমস্যার কারণে এই নৌপথে স্বাভাবিক ফেরি পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। বর্তমানে দৌলতদিয়ায় ছয়টি ফেরিঘাট রয়েছে। এর মধ্যে পন্টুনের অভাবে ৪ ও ৬ নম্বর ঘাট দুটি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘পন্টুনের অভাবে দৌলতদিয়ার ৪ ও ৬ নম্বর ঘাট দুটি চালু করা সম্ভব হচ্ছে না। পাশাপাশি যাত্রীদের দুর্ভোগ কমাতে বাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কারগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করায় ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাকগুলো আটকে আছে।’


মন্তব্য