kalerkantho


সিরাজগঞ্জে স্ত্রী হত্যা

রাজবাড়ীতে দুই কিশোর-কিশোরীর লাশ

সিরাজগঞ্জ ও রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

১৭ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



সিরাজগঞ্জ সদর পৌর এলাকার সয়াধানগড়া মধ্যপাড়ায় গতকাল সোমবার সকালে সীমা খাতুন (২২) নামের এক গৃহবধূকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর সীমার স্বামী পালিয়ে গেছে। সীমা খাতুন ওই মহল্লার খবির উদ্দিনের মেয়ে ও রায়গঞ্জ উপজেলার ভুইয়াগাঁতী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের (২৮) স্ত্রী।  খবির উদ্দিন ও স্থানীয়রা জানায়, সাত-আট বছর আগে ভুইয়াগাঁতী গ্রামের জলিম উদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে সীমার বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। শনিবার পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে সীমাসহ তিন মেয়ে ও জামাইদের নিমন্ত্রণ করে বাসায় আনেন খবির উদ্দিন। রবিবার দুই মেয়ে-জামাই চলে যান, সীমা স্বামীসহ থেকে যান। গতকাল সকালে হাসপাতালে যান সীমার মা-বাবা। পরে আব্দুর রাজ্জাক সীমাকে তাদের দেড় বছরের শিশুসন্তানের সামনে গলা টিপে হত্যা করে। 

এদিকে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বিলনুরুদ্দিনপুর ও হরিহরপুর গ্রাম থেকে দুই কিশোর-কিশোরীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দুটি পরিবারের সদস্যদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। রাজবাড়ী থানার এসআই এলাহি মিয়া বলেন, গত রবিবার সন্ধ্যায় হরিহরপুরের করিম শিকদারের মেয়ে ও নবম শ্রেণির ছাত্রী পিংকী খাতুনকে (১৫) গলায় রশি লাগানো অবস্থায় নিজ ঘর থেকে পরিবার উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নেয়। হাসপাতালের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাজবাড়ী থানার এসআই আবুল কালাম জানান, বিলনুরুদ্দিনপুরের শ্রমিক আবু সাঈদ মোল্লার ছেলে রঞ্জু মোল্লার (১৩) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। রাতের খাবার খেয়ে রঞ্জু ঘুমাতে যায়। পরদিন সকালে ঘরের আড়ায় তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পাওয়া যায়। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন। পরে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়। রাজবাড়ী থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, উভয় ঘটনাতেই থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

 



মন্তব্য