kalerkantho

এবং পূর্ণিমা

বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড শো উপস্থাপনা করে প্রশংসিত হয়েছেন। টিভি অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় এলেন এই প্রথম। শোর নামও নিজের নামে—‘এবং পূর্ণিমা’। নতুন পূর্ণিমাকে নিয়ে লিখেছেন মীর রাকিব হাসান

১৫ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



এবং পূর্ণিমা

ছবি : আরিফ আহমেদ

মুঠোফোন হাতে পেলেই ফেসবুকে ঢুঁ মারেন। নিয়মিত ছবি পোস্ট করেন, স্ট্যাটাসও দেন। ভক্তদের কমেন্ট পড়েন মনোযোগ দিয়ে। তবে ইদানীং একটু অভিমান হয়েছে ভক্তদের ওপর। পূর্ণিমা কোনো ছবি পোস্ট করলেই সেই ছবি শেয়ার করে ভক্তদের অনেকে ক্যাপশনে লেখেন, ‘ছোটবেলার ক্রাশ।’ পূর্ণিমা বললেন, ‘আমি কি এত বুড়ো নাকি! সবাই একই ক্যাপশন দেয়—ছোটবেলার ক্রাশ! বিষয়টা মানতে পারি না। আমি ছোটবেলা থেকে অভিনয় করি বলে অনেকেই ভাবছে আমার বয়স বেশি। ব্যাপারটা কিন্তু মোটেও তা নয়।’

একটু থেমে আবার বলতে শুরু করলেন, ‘আমি তো কাজে কখনো বিরতি দিইনি। অল্প হলেও কিছু না কিছু করেছি। অনেকেই বলে, আমি সিনিয়র অভিনেত্রী। ক্যারিয়ারের দিক থেকে আমার চেয়ে শাবনুর আপু ১০ কিংবা মৌসুমী আপু ১৫ বছরের বড়। সে তুলনায় আমি কতই বা বুড়ো!’

এই অভিমানে কি ছবি পোস্ট করা বন্ধ করে দেবেন? ‘হা হা হা। তা না। ছবি তুলতে আমার ভালো লাগে, ফেসবুকে দিতেও ভালো লাগে’—বললেন পূর্ণিমা।

মাছরাঙা টেলিভিশনের রান্নার অনুষ্ঠান সেরা রাঁধুনীর নতুন সিজনের বিচারক হয়েছেন। আরটিভিতে শুরু হয়েছে তাঁর উপস্থাপনায় সেলিব্রিটি শো ‘এবং পূর্ণিমা’। বড় পর্দার এই জনপ্রিয় মুখ প্রথমবারের মতো উপস্থাপনা করছেন টেলিভিশনে। প্রচার হওয়া চারটি পর্বের সবই বেশ আলোচিত হয়েছে। ২০ অথবা ২২ পর্ব উপস্থাপনা করার কথা পূর্ণিমার।

আগেও টুকটাক উপস্থাপনা করেছেন। তবে টিভিতে এই প্রথম। মঞ্চ আর টিভি অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় পার্থক্য খুঁজে পেয়েছেন? অভিজ্ঞতাই বা কেমন? ‘মঞ্চের চেয়ে টেলিভিশনের ধারণকৃত অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করা এবং অতিথিকে প্রশ্ন করাটা বেশ মজার। আমি তো অনেক অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে যাই। কত রকম প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়! সেখান থেকেও একটা অভিজ্ঞতা হয়েছে। তবে টিভিতে উপস্থাপনা করতে এসে দেখলাম, কাজটা খুব সহজ নয়।’

উপস্থাপনার প্রস্তাব আগেও পেয়েছেন টিভি স্টেশন থেকে। নিজের নামে অনুষ্ঠান ‘এবং পূর্ণিমা’, চ্যানেলও ভালো, সে কারণেই এবার রাজি হয়েছেন। পূর্ণিমা বলেন, ‘যতদূর জানি সিনেমার জনপ্রিয় নায়িকাদের উপস্থাপনায় খুব একটা দেখা যায়নি। শিল্পীদের ডাকছি, অতিথি হয়ে আসছেন তাঁরা। তাঁদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়াটাও বেশ উপভোগ্য। এটাকে টিভি অনুষ্ঠান মনে হয় না, মনে হয় আমার বাসায় যেন কেউ এলো। সে আমার কলিগ। তার সম্পর্কে আমার কিছু জানার ছিল। বা আমি লোকমুখে কিছু কথা জেনেছি। সেগুলো সত্যি কি না। এগুলো নিয়েই অনুষ্ঠানটা।’

ছোট পর্দাতেই কি নিজেকে ব্যস্ত রাখবেন পূর্ণিমা? ‘না। বিশেষ দিবসের নাটক হলেই করি। আর উপস্থাপনা তো এবারই প্রথম। তবে আপাতত নাটক না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বড় পর্দায় কাজ করতে চাই। আমি যে ধরনের ছবিতে কাজ করতে চাই সেই ধরনের প্রস্তাব পাচ্ছি না। এটা ঠিক, পছন্দসই না হলে ফেরারও কোনো মানে হয় না।’


মন্তব্য