kalerkantho


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ

দুই নেতায় মেয়াদ শেষ

শাহাদাত তিমির, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়   

১৬ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



দুই নেতায় মেয়াদ শেষ

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটির এক বছর পূর্ণ হয়েছে আজ। কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও দুই নেতা দিয়ে চলছে সংগঠন। এখনো গঠিত হয়নি পূর্ণাঙ্গ কমিটি। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ক্ষমতা ক্ষুণ্ন হওয়ার আশঙ্কায় কমিটি দিচ্ছেন না বলে অভিযোগ কর্মীদের।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ৬ এপ্রিল ইবি শাখা ছাত্রলীগের অষ্টম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, ছাত্রলীগের সভাপতি এম সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন প্রমুখ। সম্মেলনে শাখা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে অর্ধশতাধিক প্রার্থী থাকলেও তাঁদের জীবনবৃত্তান্ত জমা নেয়নি কেন্দ্র। পরবর্তী সময় ১৫ এপ্রিল এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এক বছর মেয়াদি কমিটি প্রকাশ করা হয়। কমিটিতে বাংলা বিভাগের ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষের শাহিনুর রহমান শাহিনকে সভাপতি এবং একই বিভাগের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের জুয়েল রানা হালিমকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। তবে এর বাইরে অন্য কোনো পদ কাউকে দেওয়া হয়নি। সেই থেকে ওই দুই নেতা দিয়েই চলছে সব কার্যক্রম।

সংগঠন সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ১২ এপ্রিল কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদেরকে স্ব-স্ব ইউনিটে অবস্থান করে ২৫ এপ্রিলের মধ্যে কমিটি পূর্ণাঙ্গ করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। নির্দেশনা অনুযায়ী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার দায়িত্ব পান কেন্দ্রীয় সংসদের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা নুরুন্নবী। তবে তিনি কখনো ক্যাম্পাসে আসেননি। পরে কেন্দ্র থেকে দ্রুত কমিটি করার জন্য একাধিকবার  চিঠি পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্রের কথায় কান দেননি নেতারা। তাঁরা বারবার সময় চেয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ছাড়াই মেয়াদ শেষ করেছেন।

এদিকে এক বছরেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা না করায় ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। সাবেক কমিটির অনেক নেতা পদ না পেয়ে ক্যাম্পাস ছেড়েছেন। অনেকে কোন্দলে দূরে সরে গেছেন। কেউ কেউ পড়ালেখা শেষ করে পদের আশায় এখনো রাজনীতিতে সক্রিয়।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা ফয়সাল সিদ্দিকি আরাফাত বলেন, ‘কমিটি নিয়ে বলার কিছু নেই। নেতাদের উচিত, এখন পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিয়ে দেওয়া। এতে কর্মীদের মধ্য কাজের স্পৃহা বাড়বে। পদ নিয়ে দলের জন্য নতুন উদ্যমে কাজ করার সুযোগ পাবে তারা।’

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু বলেন, ‘দুই সদস্যবিশিষ্ট কমিটি দিয়ে এক বছর একটি বিশ্ববিদ্যালয় চলছে, এটি খুবই দুঃখজনক ঘটনা। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের হস্তক্ষেপ না থাকায় এখনো কমিটি পূর্ণাঙ্গ হয়নি। হয়তো অদৃশ্য কোনো কারণে বিশ্ববিদ্যালয় নেতারা কমিটি দিচ্ছেন না। এ ছাড়া কমিটি না দেওয়ার কোনো কারণ নেই। পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিলে দল আরো গতিশীল হবে।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রলীগের এক কর্মী বলেন, ‘সম্মেলনের এক বছর পার হলেও এখনো পূর্ণাঙ্গ কমিটি না দেওয়ায় আমরা অস্তিত্ব সংকটে ভুগছি।’

শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিম বলেন, ‘পূর্ণাঙ্গ কমিটির ব্যাপারে আমরা কেন্দ্রে কথা বলেছি। প্রস্তুতিও প্রায় সম্পন্ন। দ্রুতই কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হবে।’

সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিন বলেন, ‘আমাদের কাজ চলছে। বৈশাখী কার্যক্রম শেষে আমি সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বসব। দুজনের কাজ শেষ হলে কেন্দ্রের কাছে কমিটি নিয়ে যাব। সব কিছু ঠিক থাকলে আশা করছি, এই মাসেই কমিটি দিতে পারব।’


মন্তব্য