kalerkantho


বাস চাপায় হাটহাজারীতে দুই শিক্ষার্থী নিহত

সাতকানিয়ায় যুবকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক ও সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



হাটহাজারী উপজেলার কুয়াইশ কলেজের সামনের সড়কে বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু এবং একজন আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন আরফা আবেদীন খান (১৮) ও নিলয় সরকার (১৮)। আহত শিক্ষার্থী মোহাম্মদ হোসাইন (১৮)। তাঁরা তিনজনই এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

হাটহাজারী থানার মদুনাঘাট ফাঁড়ির পরিদর্শক আরিফুর রহমান জানান, কাপ্তাই থেকে চট্টগ্রামমুখী একটি বাস বিপরীত দিক থেকে আসা একটি প্রাইভেট কারকে সাইড দিতে গিয়ে সড়কের পাশে থাকা শিক্ষার্থীদের চাপা দেয়। ওই শিক্ষার্থীরা কলেজ থেকে পরীক্ষা শেষে বের হয়ে বাড়ি ফেরার জন্য সড়কের পাশে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। আহতদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।   হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মো. হামিদ জানান, গুরুতর আহত তিন শিক্ষার্থীকে জরুরি বিভাগে আনার পর কতর্ব্যরত চিকিৎসক আরফা ও নিলয়কে মৃত ঘোষণা করেন। মো. হোসাইনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে সাতকানিয়ায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় এক যুবক নিহত হয়েছেন।

নিহতের নাম নুরুল আমিন (২৪)। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের সাতকানিয়ার হাসমত আলীর দোকান এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ছদাহা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোসাদ হোসেন চৌধুরী জানান, সোমবার দিবাগত রাতে ঢাকা থেকে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণবাহী একটি কাভার্ড ভ্যান মহাসড়কের সাতকানিয়া হাসমত আলীর দোকান এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। গতকাল ভোর চারটার দিকে খালি আরেকটি কাভার্ড ভ্যান এনে উল্টে যাওয়া কাভার্ড ভ্যানের ত্রাণ সেখানে তোলা হচ্ছিল। আফজল নগরের মহুরীপাড়া এলাকার নুরুল আমিনসহ স্থানীয় কয়েকজন যুবক ওই কাজে সাহায্য করছিলেন। এ সময় কক্সবাজারমুখী এনা পরিবহনের দ্রুতগামী একটি যাত্রীবাহী বাসের (নং-ঢাকা মেট্রো-ব-১১-৯২৩৫) ধাক্কা খেয়ে নুরুল আমিন গুরুতর আহত হন। পরে তাঁকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।


মন্তব্য