kalerkantho


মানবপাচার মামলায় অভিযোগ গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



সুনামগঞ্জের ১৫ শ্রমিককে মালয়েশিয়া পাচারের চেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা একটি মামলার অভিযোগ গঠন করেছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ও মানবপাচার প্রতিরোধ ট্রাইব্যুনালের বিচারক রোকসানা পারভীন। গতকাল মঙ্গলবার শুনানি শেষে আদালত তিন আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, চট্টগ্রামের রাজানগর এলাকার নাসির চৌধুরী (৪৮), সুনামগঞ্জ থানার শাহ আলম (২৮) ও পাঁচলাইশ থানা এলাকার বাসিন্দা নয়ন দাশ (৪৭)। তাঁদের বিরুদ্ধে আদালত মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন ২০১২ এর ৬, ৭, ও ৮ ধারায় অভিযোগ গঠন করেছেন। অভিযোগ গঠনের আগে নাসির চৌধুরী ও নয়ন দাশকে মামলার দায় থেকে অব্যাহতি দেওয়ার দুটি আবেদন বিষয়েও শুনানি হয়। শুনানি শেষে এই দুটি আবেদন খারিজ করে দেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষে আদালতে শুনানি করেন বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর জেসমিন আক্তার। এছাড়া বাদীপক্ষকে বিনা মূল্যে আইনি সহায়তা দিচ্ছে মানবাধিকার বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন (বিএইচআরএফ)। অভিযোগ গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করে মানবাধিকার আইনজীবী অ্যাডভোকেট জিয়া হাবীব আহসান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মানবপাচার মামলাটি চাঞ্চল্যকর হওয়ায় বিএইচআরএফ বাদীকে আইনি সহায়তা দিচ্ছে। ’

আদালত সূত্র জানায়, ২০১৪ সালের ১৩ অক্টোবর সুনামগঞ্জ থেকে মো. আকিজ মিয়াসহ ১৫ জন শ্রমিককে মালয়েশিয়া পাঠানোর জন্য আসামিরা যোগসাজশ করে চট্টগ্রাম মহানগরীতে নিয়ে আসেন।

মালয়েশিয়া পাচারের আগে পুলিশ গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে খবর পেয়ে লালদিঘির পাড় এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৫ জনকে উদ্ধার করে।

এই ঘটনায় আকিজ মিয়া বাদী হয়ে কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

বাদীসহ উদ্ধারকৃতরা ওই সময় পুলিশকে জানিয়েছিলেন, আসামিরা জনপ্রতি দুই লাখ ২০ হাজার টাকা করে দিলে তাঁদের মালয়েশিয়া পৌঁছে দেওয়ার কথা বলেছিল পাচারকারীরা। ওই সময় শ্রমিকরা এক সঙ্গে এতো টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে পাচারকারীরা মাত্র এক হাজার টাকা করে গাড়িভাড়া দেওয়ার জন্য বলে। শ্রমিকরা পাচারকারীদের হাতে এক হাজার টাকা করে দিয়ে মালয়েশিয়া চলে যাওয়ার জন্য ঘর ছাড়েন। বাকি টাকা মালয়েশিয়া পৌঁছে দেওয়ার শর্ত ছিল। এরই মধ্যে তাঁরা চট্টগ্রামে পৌঁছে এবং সেখান থেকে উখিয়া যাওয়ার কথা ছিল। আর উখিয়া থেকে সমুদ্রপথে তাঁদের পাচার করা হত মালয়েশিয়ায়। কিন্তু চট্টগ্রাম থেকে উখিয়া যাওয়ার আগেই পুলিশ তাঁদের উদ্ধার করে।


মন্তব্য