kalerkantho


মেয়র নাছিরের সঙ্গে মার্কিন ও থাই রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেন বার্নিকাট ও থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত পানপিমন সুবন্নাপংসে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। মঙ্গলবার সকাল ও বিকেলে আলাদাভাবে তাঁরা মেয়রের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। মেয়র উভয় দেশের রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘গুরুত্বের দিক থেকে চট্টগ্রাম একটি গুরুত্বপূর্ণ নগরী। সমুদ্রবন্দরসহ ব্যবসা-বাণিজ্যের অপার সম্ভাবনা রয়েছে।’

মেয়র আরো বলেন, ‘৬০ বর্গমাইলের চট্টগ্রাম মহানগরীতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। এখানকার নাগরিকদের জীবনমান অনেকাংশে উন্নত। কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণ হলে নগরীর জনসংখ্যা বেড়ে মেগাসিটিতে রূপ নিতে পারে। বিষয়টির প্রাধান্য দিয়ে নগরবাসীর সেবার পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হচ্ছে।’

মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেন বার্নিকাট বলেন, ‘চট্টগ্রামে এসে তিনি অভিভূত। সিটি মেয়র স্বল্পতম সময়ের মধ্যে গৃহীত পরিকল্পনাগুলো তুলে ধরেছেন।’

রাষ্ট্রদূত সিটি করপোরেশন পরিচালনার ক্ষেত্রে অর্থের উৎস কি জানতে চাইলে মেয়র জানান, নগরবাসীর হোল্ডিং ট্যাক্সের ওপর ভিত্তি করে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন পরিচালিত হয়। উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ছাড়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র পরিচালনা করাসহ নানা খাতে মাসে প্রায় ২০ কোটি টাকা খরচ করা হয়।

থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত পানপিমন সুবন্নাপংসে পাহাড়ধস রোধে থাইল্যান্ডের রাজপুত্রের প্রকল্পের অধীনে চট্টগ্রামে ভূমিক্ষয় রোধে ঘাস লাগানোর বিষয়ে মেয়রের অভিমত জানতে চান। মেয়র চিঠির মাধ্যমে প্রস্তাব রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করবেন বলে জানান।


মন্তব্য