kalerkantho


অনিশ্চয়তায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ও স্বাধীনতা কাপ

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



অনিশ্চয়তায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ও স্বাধীনতা কাপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পেশাদার লিগ কমিটির সভা মানে আগের সিদ্ধান্তকে পায়ে মাড়িয়ে কিছু নতুন সিদ্ধান্ত। নতুন সিদ্ধান্ত হলো আগামী ২ অক্টোবর থেকে শুরু হবে বন্ধ থাকা প্রিমিয়ার লিগ এবং ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে তা শেষ করার পরিকল্পনা।

তবে লিগ আর চট্টগ্রামে যাচ্ছে না, যেখানে শুরু সেখানেই শেষ হবে। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে হবে বাকি ম্যাচগুলো। এসব সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ও স্বাধীনতা কাপ পড়ে গেছে অনিশ্চয়তার মধ্যে।

দ্বিতীয় দফায় লিগে ছেদ পড়েছে সাফ অনূর্ধ্ব-১৮ চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য। ভুটানের এ টুর্নামেন্টের জন্য ১৭ দিন বিরতি দিয়ে প্রিমিয়ার লিগ আবার মাঠে গড়াবে আগামী ২ অক্টোবর। কথা ছিল, বিরতির সময় মাঠ প্রস্তুত করা হবে তারপর খেলা হবে চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়ামেও। কিন্তু কালকের সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, চট্টগ্রামের মাঠ পাওয়া যাচ্ছে না, বাকি সব ম্যাচই হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। লিগ কমিটির চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম মুর্শেদী বলেছেন, ‘লিগের ফিকশ্চার অনুযায়ী চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা মাঠ দিতে পারবে না। তাদের বোধহয় অন্যান্য খেলা আছে।

ইতিমধ্যে আমরা যশোর ভেন্যু পরিদর্শনের জন্যও পাঠিয়েছিলাম চট্টগ্রামের পরিবর্তে যদি সেখানে করা যায়, কিন্তু মাঠের অবস্থা বেশ খারাপ। তাই ঢাকায় করতে হচ্ছে লিগের বাকি ম্যাচগুলো। ’ অর্থাৎ লিগের বাকি ১৪ রাউন্ডের ৮৪টি ম্যাচ হবে এই ভেন্যুতে! এবং ডিসেম্বরের মধ্যে সেসব শেষ করার পরিকল্পনা তাদের। অথচ গত মৌসুমে লিগ হয়েছিল পাঁচ ভেন্যুতে। এবার নেমে এসেছে এক ভেন্যুতে! এই হচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবলের উন্নতি।

লিগ না হয় ধানাই-পানাই করে শেষ হবে, কিন্তু ক্যালেন্ডারের স্বাধীনতা কাপের কী হবে? কী হবে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের? বাফুফের ক্যালেন্ডারে কিন্তু সবই আছে। সেটা ধরলে বঙ্গবন্ধু কাপ হওয়ার কথা ছিল মার্চের ১১ থেকে ১৩ তারিখ। পিছিয়ে দিয়েছিল বাফুফেই। বলেছিল শক্তিশালী জাতীয় দল নিয়ে যেন মাঠে নামা যায়, সে জন্যই পিছিয়ে নেওয়া হয়েছিল ডিসেম্বরে। তারিখ ছিল ১৮-৩১ ডিসেম্বর। লিগ যখন ডিসেম্বরে চলবে তখন এই আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। অর্থাৎ এ বছরে আর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ হচ্ছে না। তাহলে কেনই-বা প্রতিশ্রুতি দেওয়া আর অকারণে ক্যালেন্ডারে ঢোকানো! সালাম মুর্শেদীর জবাব, ‘কিছু করার নেই। বাস্তবতা মেনেই চলতে হবে, বৃষ্টি আর নানা আন্তর্জাতিক সূচির কারণে লিগটা অনেক পিছিয়ে গেছে। তার পরও বলছি, বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ হবে এবং আগামী বাফুফে সভায় বসে ঠিক করা হবে। ’

ক্যালেন্ডারে স্বাধীনতা কাপের পাশে লেখা আছে ২৭ অক্টোবর থেকে ১২ নভেম্বর। তখন লিগ চলবে এবং বিরতিহীনভাবে চলবে। তাহলে সেটা আয়োজনের কোনো সুযোগ নেই। এ ক্ষেত্রেও পেশাদার লিগ কমিটির চেয়ারম্যানের একই কথা, ‘আগামী সভায় এ নিয়ে আলাপ হবে। আশা করি আগে-পিছে করে সব করব। ’ এখন প্রশ্ন উঠতেই পারে, কোনো ইভেন্টই ঠিকঠাক রাখা না গেলে এই ক্যালেন্ডারটা তারা কেন দিয়েছিল। সেখানে যে আরো কত ইভেন্ট আছে, যেগুলো করতেই পারেনি। অথচ সেই ক্যালেন্ডারে আবার গালভরা  কথা—‘ওয়ান গেম, ওয়ান ভিশন ও ওয়ান ড্রিম’। খুবই হাস্যকর। একটা গেম নিয়ে তাদের ভিশন আর মিশন হলেও সেটা যে ঠিকঠাক চালাতে পারছে না তা ওই নিজেদের করা ক্যালেন্ডারের দিকে তাকালেই স্পষ্ট হয়ে যায়।


মন্তব্য