kalerkantho


এগিয়ে গিয়েও বায়ার্নের ড্র, জিতল টটেনহাম

২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



এগিয়ে গিয়েও বায়ার্নের ড্র, জিতল টটেনহাম

সেপ্টেম্বর মাসটা খারাপই যাচ্ছে বায়ার্ন মিউনিখের। এই মাসের গোড়ার দিকেই হফেনহেইমের কাছে ২-০ গোলে হেরে গিয়ে মৌসুমে প্রথমবারের মতো তেতো স্বাদটা চাখতে হয়েছিল বাভারিয়ানদের।

শুক্রবার রাতে ভলফসবুর্গের সঙ্গে ২-০ গোলে এগিয়ে থাকার পরও ২-২ গোলে ড্র করল বায়ার্ন। মানুয়েল নয়ারের চোটের কারণে একাদশে জায়গা পেয়েছিলেন বিকল্প গোলরক্ষক সভেন উলরিখ, তাঁর ভুলেই ২ পয়েন্ট হারিয়েছে বায়ার্ন, তবু কোচ কার্লো আনচেলোত্তির কোনো অভিযোগ নেই। ফ্রেঞ্চ লিগে একই স্কোরলাইনে ড্র করেছে নিস ও অ্যাঞ্জার্স, তবে রাদামেল ফালকাওয়ের জোড়া গোলে মোনাকো ৪-০ গোলে হারিয়েছে লিলকে। প্রিমিয়ার লিগে অল্পের জন্য বায়ার্নের মতো ভাগ্য হয়নি টটেনহামের। ম্যাচঘড়ির কাঁটায় যখন এক ঘন্টা, তখন স্পাররা ৩-০তে এগিয়ে। এরপর দুই গোল হজম করে শেষ পর্যন্ত তারা ৩-২ গোলে হারিয়েছে ওয়েস্ট হ্যামকে, জোড়া গোল হ্যারি কেনের। স্পেনে লা লিগায় সেভিয়াকে ২-০ গোলে হারিয়েছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ, দুই গোলদাতা আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান ও ইয়ানিক কারাস্কো।

নতুন বছর শুরুর আগে নয়ারকে একাদশে পাওয়ার আশাও করতে পারছেন না আনচেলোত্তি। বুধবার রাতে প্যারিসে গিয়ে প্যারিস সেন্ত জার্মেইর বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচটা নিয়েই তাই এই ড্রয়ের চেয়ে বেশি দুশ্চিন্তা বায়ার্ন কোচের।

এমন গোলরক্ষক হলে তো নেইমার-কাভানি-এমবাপ্পেদের সামনে কোনো প্রতিরোধই যে গড়ে তোলা যাবে না! ম্যাচের প্রথমার্ধটা ছিল বায়ার্নেরই নিয়ন্ত্রণে। গোলের বেশ কিছু সুযোগ তৈরি হলেও ম্যাচের ৩৩ মিনিটে বায়ার্নের প্রথম গোলটা আসে পেনাল্টি থেকে, বক্সের ভেতর ফাউলের শিকার রবার্ট লেভানদোস্কিই স্পটকিকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। আরিয়েন রবেনের বাঁ পায়ের শটটা প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে জালে ঢুকে গেলে ৪২ মিনিটেই ২-০তে এগিয়ে যায় বায়ার্ন। তবে বিরতির পর উলরিখের হাস্যকর ভুলে সমতা ফিরিয়ে নতুন উদ্যমে জেগে ওঠে ভলফসবুর্গ। ৩০ গজ দূর থেকে আর্নল্ডের নেওয়া ফ্রিকিকটা প্রথমে ধরে ফেলতে চাইলেও শেষ সময়ে সিদ্ধান্ত পালটে ফিস্ট করে দিতে চেয়েছিলেন উলরিখ, এই তালেগোলে বল তাঁর দুহাতের ফাঁক দিয়ে ঢুকে যায় জালে! ৮৩ মিনিটে ক্রসে দানিয়েল দিদাভির হেডে বল পোস্টে লেগে জালে ঢোকার ব্যাপারে অবশ্য কিছু করার ছিল না উলরিখের। ২-০ গোলে এগিয়ে থাকার পর ২-২ সমতা ফেরা খেলায় আর গোল করতে পারেনি কোনো পক্ষই, তবে নিজের মাঠে এগিয়ে যাওয়ার পরও এমন ড্র নিশ্চয়ই হারের মতোই জ্বালাময় মনে হচ্ছে বাভারিয়ানদের কাছে।

আনচেলোত্তি সরাসরি হারের কারণ হিসেবে উলরিখের ভুলটাকে উল্লেখ না করলেও একেবারে ছেড়ে কথা বলেননি, ‘এটা সত্যি যে উলরিখ ভুল করেছে, তবে তার ভুলটা খেলার ফলকে প্রভাবিত করেনি। আমরা হেরেছি খারাপ খেলার জন্য। আমাদের খেলায় একাগ্রতা ছিল না। আমরা জমাট ফুটবল খেলিনি। ’ পিএসজির সঙ্গে এমন পারফরম্যান্সের ফল যে ভিন্ন হবে, সেটা আশঙ্কা করেই আনচেলোত্তি বলেছেন, ‘এই পারফরম্যান্সের পুনরাবৃত্তি হলে তো সেটা দুশ্চিন্তার বিষয়, তবে মনে হয় আমরা অন্য রকমভাবে খেলব। ’ আনচেলোত্তি কিছুটা আড়াল করলেও উলরিখকে কড়া কথাই শুনিয়েছেন সতীর্থ ম্যাটস হুমেলস, ‘উলরিখ নিজেই নিজের ওপর বিরক্ত, সে বোকার মতো একটা ভুল করেছে। এ রকম ভুলে গোল খেলে আরেকটি গোলেরও সুযোগ তৈরি হয়। ’

ওয়েস্ট হ্যামের বিপক্ষে ম্যাচের ৩৩ মিনিটে কেনের গোলে এগিয়ে যায় টটেনহাম। অ্যান্ডি ক্যারলের ভুল থেকে পাওয়া বলের দখল নেন এরিকসন, পাস দেন ডেল্লে আলিকে, তার ক্রসে কেনের হেড থেকে গোল। ‘এমএনসি’, ‘বিবিসি’ যুগে টটেনহামের এই ত্রয়ীও যে কম যান না, গোলটা যেন তারই প্রমাণ! মিনিট পাঁচেক পর আবার গোল কেনের। ২-০তে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যাওয়ার পর ফের খেলা শুরুর মিনিট পনেরোর মাথাতেই এরিকসনের গোলে ৩-০ করে ফেলে হটস্পার্স। কিন্তু ম্যাচের ৬৫ মিনিটে হাভিয়রে এর্নান্দেসের গোলে ব্যবধান কমায় ওয়েস্ট হ্যাম, আর তার মিনিট পাঁচেকের ভেতর লাল কার্ড দেখে টটেনহামের সের্হিও অরিয়ের মাঠের বাইরে চলে গেলে শঙ্কা মুরিসিও পোচেত্তিনোর চোখেমুখে। ৮৭ মিনিটে কয়োটে ৩-২ করে ফেললে রক্তচাপ আরো বাড়ে! তবে শেষ পর্যন্ত ৩ পয়েন্ট নিয়েই ফিরেছে টটেনহাম। এমন স্নায়ুক্ষয়ী জয়ের পর পোচেত্তিনো বলছেন, ‘মাঝে মাঝে এ রকম খানিকটা ঝাঁকুনিরও দরকার আছে। তাতে মনে হয়, এখনো বেঁচে আছি!’ আর জোড়া গোল করা কেন বললেন, ‘৩-০তে এগিয়ে থাকার পর ফলটা যখন ৩-১, বা ৩-২ হয়, সেটা একেবারে স্নায়ুর কড়া পরীক্ষা নেয়। তার ওপর মাঠে যখন ১০ জন। তবে দারুণ একটা ফল হয়েছে। ’ বিবিসি, স্কাই স্পোর্টস


মন্তব্য